প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রিপাবলিকান দলকে ক্ষমতাহীন ও অন্তসারশূূন্য করে রেখে গিয়েছেন ট্রাম্প

লিহান লিমা: [২] প্রায় এক দশকেরও বেশি সময়ের পর এই প্রথমবারের মতো রিপাবলিকান দল ওয়াশিংটনে এমন এক সকাল দেখলো যেখানে হোয়াইট হাউস ও কংগ্রেসের দুইকক্ষেই আধিপত্য বিস্তার করেছে ডেমোক্রেটরা। অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব, গভীর অনিশ্চয়তা এবং ক্ষমতা খর্বের নতুন সকাল শুরু হলো রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের জন্য। এপি

[৩]২০০৮ সালের পর এই প্রথমবারের মতো সিনেটে সংখ্যালঘু হওয়া বা নির্বাচনে হারের জন্য কে বা কারা দায়ী এই বিতর্ক অবশ্যই দলের মধ্যে এখন ঘুরপাক খাবে। সেই সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্প ব্যাতীত দলের অবস্থান কি হবে তা নিয়েও টানাপোড়নে ভুগতে হবে দলটিকে।

[৪]গত ৪ বছরে এমন এক প্রেসিডেন্ট দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন যিনি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে খর্ব করেছেন, দলের শক্তিশালী পররাষ্ট্রনীতিকে উগ্র জাতীয়তাবাদ দিয়ে বিচ্ছিন্ন করে ছেড়েছেন। দলের অভ্যন্তরে ট্রাম্পের অনেক সমর্থক রয়েছেন, এই প্রেক্ষিতে দলের নতুন এজেন্ডার রুপকল্প নিয়ে ভাবতে হবে তাদের।

[৫]ম্যারিল্যান্ডের রিপাবলিকান গর্ভনর ল্যারি লোগান বলেন, ‘আমরা কি ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেখানো পথেই চলবো নাকি নিজেদের মূল শেকড়ে ফিরে যাবো তা বাছাই করার সময় হয়েছে। ডোনাল্ড ট্রাম্পকে মুছে ফেলাই দলের জন্য সেরা হবে, কিন্তু আমি মনে করি না তাকে পুরো বাদ দেয়া যাবে।’

[৬] টেক্সাসের জিওপি সিনেটর ট্রেড ক্রুজ বলেন, ‘ট্রাম্প রাজনৈতিক আলোচনায় একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে থাকবেন। কিন্তু রিপাবলিকান দলের উচিত বিভেদ সৃষ্টিকারী এবং অবমাননাকর বাক্য ব্যবহার থেকে সরে আসা, বিশেষ করে নারীর প্রতি।’

[৭] ট্রাম্প বিদায়ের পূর্ব রাজনীতি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। যদি সিনেট ট্রাম্পকে অভিশংসন না করে ট্রাম্প অবশ্যই ২০২৪ সালে ফেরার চেষ্টা করবেন, এমনকি তৃতীয় প্রার্থী হিসেবেও দাঁড়াতে পারেন, যা ইতোমধ্যেই ক্ষমতা হারানো রিপাবলিকানদের জন্য আরো খারাপ হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত