প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কারচুপির অভিযোগ এনে ৪ বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ভোট বর্জন

সমীরণ রায় ও জেরিন আহমেদ: [২] সারাদেশে দ্বিতীয় দফার পৌরসভা নির্বাচনে বিভিন্ন স্থানে হামলা, সংঘর্ষ, এজেন্টদের মারধরের ঘটনায় অন্তত আহত ২১জন। সারাদেশের ৬০ পৌরসভায় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ভোট কেন্দ্র থেকে স্বতন্ত্রসহ অন্য দলের মনোনীত প্রার্থীর এজেন্টদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। বেশ কয়েক জায়গায় আওয়ামী লীগের সমর্থকদের বিরুদ্ধে ভোটারদের ফিঙ্গার প্রিন্ট নিয়ে বের করে দেওয়া, ব্যালট ছিনিয়ে নিয়ে নৌকায় সিল মারা, বিএনপির এজেন্টদের মারধর ও কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়ার মতো অভিযোগ উঠেছে। এসব অভিযোগ উঠলেও সার্বিকভাবে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচন শেষ হয়েছে।

[৩] শনিবার ফেনীর দাগনভূঞাঁয় একটি কেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে ৫জন আহত হন। মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় ভোটকেন্দ্র দখল নিয়ে ছাত্রলীগের দুপক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখে কর্তৃপক্ষ। হবিগঞ্জের নবীগঞ্জে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি মেয়র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের অন্তত ১০জন আহত হন। ঝিনাইদহের শৈলকুপায় দুই মেয়র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় ২জন আহত হন। কুমিল্লার চান্দিনায় দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৪জন আহত হন। মাগুরায় বিএনপির প্রার্থীর এজেন্টদের বের করে দেওয়া, মারধরের অভিযোগ রয়েছে। টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে আঙুলের ছাপ নিয়ে ভোটারদের বের করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

[৪] কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে এজেন্টদের মারধর করে কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া ও ইভিএমে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে বাধ্য করার অভিযোগে বিএনপির মেয়র প্রার্থী নুরুল মিলাদ ভোট বর্জন করেন। পাবনার ঈশ্বরদীতে বিএনপি প্রার্থী রফিকুর ইসলাম নয়ন কারচুপির অভিযোগ এনে ভোট বর্জন করেন। ভোট বর্জন করেন রাজশাহীর বাগমারার ভবানীগঞ্জে বিএনপি প্রার্থী আবদুর রাজ্জাক প্রামানিক। ভোট দিতে না দেওয়া, কেন্দ্র থেকে এজেন্ট বের করে হুমকি-ধামকির অভিযোগ এনে গাংনীতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী আসাদুজ্জামান বাবলু ভোট বর্জন করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত