প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সিরাজদিখানে সহায় সম্বলহীন শহিদুলের আর্তনাদ

জাহাঙ্গীর চমক:[২] শীতে কষ্টের যেন শেষ নেই। নেই জমি, নেই থাকার মত একটি ঘর, উপার্জনের নেই কোন ব্যবস্থা, এমনকি শীত থেকে রক্ষা পেতে নেই কোন গরম কাপড়। খাবারের জন্য যেতে হয় অন্যের বাড়িতে। এমনি কষ্টে অন্যের জমিতে কোন মতে দিন কাটাচ্ছে শহিদুল পরিবার।

[৩] সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেরার লতব্দী ইউনিয়নের লতব্দী দক্ষিনপাড়া মসজিদ সংলগ্ন একটি মেহগুনি বাগানে থাকেন শহিদুল মোল্লা (৭৫)। মাথা গুজার জন্য এক টুকরো জমি ছিলো শহিদুলের। তাও এক মাত্র মেয়ের বিয়ের জন্য লিখে দেয় জমিটি। সেই মেয়ে জমি বিক্রি করে বিদেশ চলে যায়। এখন পিতা মাতার খোজ খবর নেয় না মেয়ে। তাই অন্যের জমিতে ৪ বছর ধরে আশ্রয় নিয়েছে। লতব্দী ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ভূমিহীনদের নামের তালিকায় এবছর তার নাম অন্তর্ভুক্ত করলেও কবে ঘর পাবে এ বিষয়ে কিছুই জানেনা সে।

[৪] স্থানিয়রা বলেন, শহিদুলের বাড়ি ছিলো। সেই বাড়ি বিক্রি করে দিয়েছে তার মেয়ে। এখন থাকার মত আর কোন যায়গা না থাকায় এ মেহগুনি বাগানে ৪ বছর ধরে থাকেন। এখন সরকার যদি তাদের দিকে তাকায়।

[৫] লতব্দী গ্রামের শহিদ মোল্লা বলেন, আমার যতটুকু জমি ছিলো তা মেয়ের বিয়ের সময় তার নামে লিখে দিয়েছি। সেই জমিতে আমরা থাকতাম। এখন সে জমি বিক্রি করে মেয়ে সুজনি বিদেশ চলে গেছে। আমাদের কোন খুজ খবর নেয়না। নিজের জমি না থাকায় একি গ্রামের হাফেজ খানের জমিতে ৪ বছর ধরে থাকি। তবে টাকার অভাবে তিনবেলা খাওয়াই কষ্ট। আর একটি ঘর কি করে উঠাবো। বৃষ্টির সময় ঘরে পানিপরে আবার শীতেও অনেক কষ্ট করতে হয়। আমার স্ত্রী মানসিক রোগী। এখন এক আল্লাহ ছাড়া আমার আর কেউ নাই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত