প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] গত বছর ৬২৬ শিশু ধর্ষণসহ দশ মাসে মোট ধর্ষণের শিকার ১ হাজার ৮৬ জন : গবেষণা প্রতিবেদন

শরীফ শাওন: [৩] ধর্ষণের শিকার শিশুর মধ্যে বালিকা ৬১৬ ও বালক ১০ জন। এছাড়াও বালিকা ও বালক ক্রমানুসারে যৌন নির্যাতনের শিকার ১৫-১, ধর্ষণ চেষ্টা হয়েছে ৩৫-২ জনের উপর।

[৪] এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত শিশুদের মধ্যে ১০১ বালিকার বাল্যবিয়ে, অপহরণ ৭ (বালিকা ৫- বালক ২), হত্যা ও হত্যার চেষ্টা ১৪৫ (৫২-৯৩), নির্যাতন ১৬ (১৫-১), আত্মহত্যা ৩৪ (২৬-৮), অপরাধের সংশ্লিষ্ট শিশু ২ (১-১), নিখোঁজ ২২ (৭-১৫), পানিতে (পুকুরে ডুবে ১১৫, নদীতে ৩০ ও বন্যার পানিতে ২০) ডুবে ১৬৫ (৯০-৭৫) জনের মৃত্যু হয়েছে। সড়ক দুর্ঘটনা ১৫৮(৫৫-১০৩), অন্যান্য দুর্ঘটনা ১৯২(৭০-১২২),

[৫] শনিবার মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’র প্রতিবেদনে বলা হয়, পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্যমতে ১০১ জনের বাল্যবিয়ে থাকলেও ফাউন্ডেশন ও তার সহযোগী সংগঠনগুলোর গবেষণা পরিসংখ্যানমতে এসময়ে বাল্যবিয়ে হয়েছে ৯৩৫ জনের।

[৬] ২০২০ সালের (জানুয়ারি-অক্টোবর) দশ মাসে ধর্ষণের শিকার নারী ও শিশুর মধ্যে দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার ২৭৭ জন। ধর্ষণের পত হত্যা করা হয়েছে ৫০ জনকে, ধর্ষণের পর আত্মহত্যা করেছে ২৯ জন।

[৭] ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীনা আনামসহ উপস্থিত বক্তারা বলেন, প্রতিবেশির মাধ্যমে শিশুদের বড় অংশ ধর্ষণের শিকার, কোন কোন ক্ষেত্রে তাদের সর্বনিন্ম বয়স ২ বছর। খেলতে গিয়ে পরিচিতদের প্রলোভনে শিশুরা, প্রেমের ফাঁদে কিশোরীরা, স্কুল মাদ্রাসায় শিক্ষক ও ইমামের দ্বারা এবং নিজ ঘরে স্বজনদের দ্বারাও ধর্ষণের শিকার হচ্ছে।

[৮] সামাজিকভাবে করণীয়তায় অভিভাবকদের সচেতন করা, নিজ সুরক্ষা শিক্ষা দেওয়া, জনসচেতনতা, ভাল এবং খারাপ স্পর্শ পার্থক্য বোঝানো, আত্মীয় ও পরিচিত থেকে সতর্ক রাখার বিষয় জানানো হয়। সরকারি ও বেসরকারি উদ্দোগে করণীয় হিসেবে শিশু অধিকার সংক্রান্ত পৃথক অধিদপ্তর কার্যকর করা, সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে সমন্বয় করতে স্থানীয় পর্যায়ে শিশু সুরক্ষা কমিটি গঠন ও পরীবেক্ষণ জোরদার করা, গৃহকর্ম, ঝুঁকিপূর্ণ শিশু শ্রমের তালিকা হালনাগাদ করা এবং পৃথক বাজেট বরাদ্দ রাখার আহ্বান জানানো হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত