প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ২০২১: সচল ক্যাম্পাস চান ড. আনোয়ার, আর ডা. জাফরুল্লাহ চান গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলন

ভূঁইয়া আশিক রহমান: [২] শিক্ষাবিদ ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন বলেন, নতুন বছরটি শুরু করতে চাই বড় আশা নিয়ে, করোনা সত্ত্বেও। করোনা আমাদের বিপন্ন করেছে। তবুও করোনার সঙ্গে লড়াই করে আমরা আমাদের ভবিষ্যতের জন্য বর্তমানকে নির্মাণ করতে চাই। আশা করি, নতুন বছরে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা ক্লাসরুমে ফিরবে।

[৩] তিনি বলেন, করোনায় সবচেয়ে বেশি বিঘ্নিত হয়েছে শিক্ষাব্যবস্থা। আর সবকিছু কমবেশি চলেছে। কিন্তু শিক্ষা একেবারে স্থবির হয়ে পড়েছে। সরকার কিছু উদ্যোগ নিয়েছে, সেগুলো পরিস্থিতির বিবেচনায় অনিবার্য ছিলো। আশা করবো, মহামারির থাবা সামলে শিক্ষা ব্যবস্থা চলমান থাকবে। শিক্ষায় ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে। ভ্যাকসিন আশার পর পরিস্থিতির গুণগত পরিবর্তনের আশা করছি। এতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের আবারও ফিরিয়ে আনবে।

[৪] গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ২০২১ সাল হবে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার বছর। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য ২০২১ সালে আন্দোলন হবে। গণজারণের প্রত্যাশা করছি।

[৫] তিনি বলেন, বাংলাদেশের গণতন্ত্র এখন কবরে, মাটিচাপা দেওয়ার বাকি কেবল। এর জন্য মূলত সরকার দায়ী, অন্যদেরও কিছুটা দায় আছে। আমরা খুব খারাপ পথে পা বাড়িয়েছি। আমাদের যাতনা বেড়েছে। এই যাতনা কমানো সম্ভব। এজন্য সকল রাজনৈতিক দলকে রাজপথে নামতেই হবে। কথাবার্তা, আলাপ-আলোচনা করলে অনেক সংকট সহজে সমাধান করা সম্ভব, সমাধানের পথও খুলে যায়। সম্পাদনা: সালেহ্ বিপ্লব

 

সর্বাধিক পঠিত