প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] হাসপাতালের ঔষধ কোম্পানির বিজ্ঞাপনসহ টিকেট বন্ধ

এএইচ রাফি: [২] ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ৫০ শয্যা বিশিষ্ট নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সরকারি টিকেটে ও ওয়ার্ডে ভর্তির ফরমে ছাপানো বেসরকারি ঔষধ কোম্পানীর বিজ্ঞাপনসহ বিতরণ করা হতো। এই অনিয়ম নিয়ে গত ২১ ডিসেম্বর আমাদের সময় ও ২২ ডিসেম্বর আমাদের নতুন সময়-এ সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরই প্রেক্ষিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ওইসকল টিকেট ও ভর্তি ফরম বিতরণ বন্ধ করে দিয়েছে।

[৩] খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরি বিভাগে আসা রোগীদের ৫টাকার বিনিময়ে টিকেট সংগ্রহ করতে হয়। সেই টিকেটের গায়ে ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি ঔষধ কোম্পানির ৫টি ঔষধের নাম বিজ্ঞাপন দেওয়া রয়েছে।

[৪] এরিস্টো ফার্মা ঔষধ কোম্পানির ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এসিস্ট্যান্ট সেলস ম্যানেজার আনোয়ার হোসেন জানান, সর্বশেষ আনুমানিক দুই/তিন মাস আগে ফরম গুলো দেওয়া হয়েছিল। ফরম গুলো শেষ হলে আমাদের জানানো হয়, তখন আমারও আবার সরবরাহ করা হয়।

[৫] ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল ঔষধ কোম্পানির ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এরিয়া ম্যানেজার জমসেদুল হক বলেন, ড্রাগ ইন্টারন্যাশনাল কোম্পানির নাসিরনগরে নতুন প্রতিনিধি। সেখানে পুরাতন কেউ নেই। আমি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কাজ করি। আমাদের সহকর্মীরা জানিয়েছেন, প্রায় দুই বছর আগে জরুরী বিভাগের স্লিপ গুলো দেওয়া হয়েছিল। তারপর আমাদের কোম্পানি আর দেয়নি। তবে আমার সহকারী জানিয়েছে, দুই/তিন আগে নাসিরনগর হাসপাতাল থেকে আবারও স্লিপ দিতে বলেছে। কিন্তু আমাদের কোম্পানি আর স্লিপ দিবে না। কারণ তাদেরকে টাকা খরচ করে স্লিপ দেওয়া হলেও তেমন ঔষধ লিখে না। এছাড়াও আমাদের কোম্পানি ব্যয় সংকোচন করেছে।

[৬] এবিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন ডা. একরাম উল্লাহ আমাদের সময়কে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বিষয়টি তুলে ধরার জন্য ধন্যবাদ। সরকারি কাগজে বেসরকারি বিজ্ঞাপন দেওয়া যায় না। আমরা এই বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

[৭] তবে ২১ ডিসেম্বর ডা. অভিজিৎ রায় জানিয়েছিলেন, আমি যোগদান করারও আগে ঔষধ কোম্পানি টিকেট গুলো দিয়েছিল বলে জানতে পেরেছি। এক প্রশ্নের জবাবে ডা. অভিজিৎ রায় বলেছিলেন, সরকারি এই কাগজে ঔষধ কোম্পানির বিজ্ঞাপন দেওয়ার কোন সুযোগ নেই। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত