প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাংলাদেশের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে এগিয়ে চীন, কিন্তু মোদীর বিশ্বাস এটিই শেষ কথা নয়: দ্য প্রিন্টের প্রতিবেদন

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [২] ১৭ ডিসেম্বর অনলাইনে বৈঠক করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্দেশ্য বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপনের সূচনা করা। এর ঠিক এক সপ্তাহ আগে চীনা ইঞ্জিনিয়াররা বাংলাদেশিদের সঙ্গে নিয়ে ৬.১৫ কিলোমিটার পদ্মা সেতুর শেষ স্প্যান স্থাপন করেছেন।

[৩] বাংলাদেশের জন্য এটি ছিলো বিশাল এক দিন। বাংলাদেশের সর্বাধিক পঠিত ইংরেজি দৈনিকের সম্পাদক ও মুক্তিযোদ্ধা মাহফুজ আনাম। তিনি নিয়মিতই বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমালোচনা করেন। তিনি উচ্ছসিত হয়ে এই দিনটি সম্পর্কে বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক ইচ্ছা বাংলাদেশের জন্মানোর কারণ ছিলো। আর শেখ হাসিনার রাজনৈতিক আকাঙ্খাই পদ্মাসেতুকে বাস্তবে পরিণত করলো। পদ্মা সেতুকে বাস্তবে পরিণত করার বাধা কম ছিলো না। একক চেষ্টায় শেখ হাসিনা সেটিকে বাস্তব করেছেন।’

[৪] ২০১১ সালে তৎকালীন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং পদ্মার উপর সেতু নির্মানে ১০০ কোটি ডলার দেবার ঘোষণা দেন। বিশ্ব ব্যাংক, এডিবি, জাইকা এই প্রকল্প থেকে সরে আসার পর ঢাকার ধারণা ছিলো ভারত প্রতিশ্রুত অর্থ দেবে। ২০১৫ সালে নরেন্দ্র মোদী বাংলাদেশে এসেও ২০ কোটি ডলার তাৎক্ষণিক এবং পরবর্তীতে ২০০ কোটি ডলার দেবার প্রতিশ্রুতি দেন। সালে ঢাকায় আসেন শি জিন পিং। এরপরই দেখা যায় পদ্মা সেতুর কাজ পাচ্ছে চীনা একটি কোম্পানি। অবশ্য সেতুটি নির্মিত হয়েছে বাংলাদেশের অর্থে। ভারত শুধু প্রতিশ্রুতিই দিয়েছে, কোনও অর্থ দেয়নি।

[৪] এবার সম্পর্ক উন্নয়নে বাংলাদেশে কিছু কাজ করতে চায় মোদী সরকার। এর মধ্যে রয়েছে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি লাইনের সংস্কার, ২০১৮ সালে প্রতিশ্রুত একটি তিল পাইপলাইনের নির্মান, যা বিস্তৃত হবে শিলিগুড়ি থেকে দিনাজপুর পর্যন্ত এবং ১০০০ কোটি ডলার ঋণ ও বিনিয়োগ। অবশ্য চীন ৪ বছর আগেই বাংলাদেশে ২ হাজার ৪০০ কোটি ডলার বিনিয়োগের ঘোষণা দিয়ে কাজ শুরু করে দিয়েছে।

[৬] তবে মোদীর প্রধান সমস্যা হলো শেখ হাসিনার মুড বদলে গেছে। তিনি নিজেকে দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে বাস্তববাদী মানুষ হিসেবে প্রমাণ করেছেন। তিনি বাস্তবতার নিরিখেই ১৯৭১ সালে পকিস্তানের পক্ষ নেয়া ও বাংলাদেশের জাতিসংঘ সদস্যপদ পেতে ভেটো দেয়া চীনের ঘনিষ্ঠ হয়েছেন। মোদী বাস্তবতা বোঝেননি। যার খেসারত হয়তো দিতে হবে ভারতকে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত