প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ছিনতাই চক্রের সংকেত, টার্গেটের নাম ধুর পুলিশ হলো বিলা

রাজু চৌধুরী: [২] চট্টগ্রাম নগরীতে একই ছিনতাই চক্রের ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ। দুই দফা অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সোমবার (১৪ ডিসেম্বর) কোতোয়ালী থানা পুলিশ জানায় চারদিন আগে তাদের দলনেতাকে গ্রেপ্তারের পর বাকি চার জনকে পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) মোঃ জাবেদ উল ইসলাম, এসআই মোঃ মোমিনুল হাসান সঙ্গীয়, এসআই পলাশ চন্দ্র ঘোষ, এএসআই অনুপ কুমার বিশ্বাস, এএসআই জয়নাল আবেদীন, এএসআই রুবেল বড়ুয়া, কং/৫৪১১ মোঃ আলী হোছাইন, রোমিও-২১ অফিসার এএসআই মোঃ রাসেল, কং ১৯৭২ ফরহাদ, কং ২৩২৪ ছোটন বড়ুয়া সমন্বয় টিম কোতোয়ালী রোববার গ্রেপ্তার করে। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (কোতোয়ালী জোন) নোবেল চাকমা জানান, প্রায় এক দশক আগে চট্টগ্রাম মহানগরীতে এই দুর্ধর্ষ ছিনতাইকারী চক্র ‘হামকা গ্রুপ’ খুবই সক্রিয় ছিল মাঝখানে কিছু দিন তৎপরতা কম থাকলেও পুনরায় সংগঠিত হয়ে কৌশলে ছিনতাই অপরাধে জড়িয়ে সক্রিয় হয়ে উঠেছে। গলায় গামছা পেঁচিয়ে টার্গেট করা ব্যক্তিকে দুর্বল করে ছিনতাই করা ছিল তাদের কৌশল। ২০১৭ সালে হামকা গ্রুপের মূল নেতা নুর আলম গ্রেপ্তারের সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে হয়ে বর্তমানে কারাগারে আছে। তার অনুপস্থিতিতে হামকা গ্রুপ ভেঙে নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়।

[৩] সেই গ্রুপের সদস্য মিঠু, সাব্বির আর সজীব গত একবছরেরও বেশি সময় ধরে নগরীতে কৌশল পাল্টে তারা মূলত নগরীর আগ্রাবাদ, ষোলশহর দুই নম্বর গেইট, মুরাদপুর, জিইসি মোড় থেকে যাত্রী সংগ্রহ করে আর বেশিরভাগ সময় ছিনতাই করে সিআরবি অথবা লালখান বাজার মোড়ে ফ্লাইওভারের প্রবেশমুখে ছিনতাই করে ।

[৪] কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন জানিয়েছেন, রোববার (১৩ ডিসেম্বর) রাতে নগরীর সিআরবি এলাকা থেকে চার জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হল, নুরুল হক সজীব (২৯), মো. শহীদ চৌধুরী (২৭), আব্দুল খালেক (৪০) ও মো. ইব্রাহিম (৪২)। সজিবের কাছ থেকে একটি একনলা বন্দুক ও তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয় এবং রোববার সকালে গোপালগঞ্জের মোকসেদপুর উপজেলার বামনডাঙ্গা থেকে মো. হেদায়েত বিশ্বাস সাব্বির (৪৪) নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান ওসি মহসীন। তিনি আরও জানান, গত বৃহস্পতিবার (১০ ডিসেম্বর) নগরীর সিআরবি এলাকা থেকে অন্যতম দলনেতা মোস্তাকিন হোসেন মিঠুকে (৩৫) আটক করা হয় এবং গত ১৭ নভেম্বর নগরীর লালখান বাজার মোড়ে ফ্লাইওভারের প্রবেশমুখে এক ব্যক্তির কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে দায়ের হওয়া একটি মামলায় প্রথমে মিঠুকে গ্রেপ্তার করা হয়, আদালতের নির্দেশে তিনদিনের পুলিশ হেফাজতে আছে।

[৫] জিজ্ঞাসাবাদে মিঠু পুলিশকে জানায়, তাদের গ্রুপের প্রত্যেক সদস্যই সিএনজি অটোরিকশা চালাতে সক্ষম। পুলিশকে জানায়, রাস্তায় অপেক্ষারত প্রথম অটোরিকশাটি খালি থাকে, দ্বিতীয়টিতে চালকসহ চার ছিনতাইকারী থাকে। ব্যাংকের নিচে দাঁড়ানো খালি অটো রিকশাতে যাত্রী হয় গেলে নির্জন কোনো স্থানে গিয়ে অটোরিকশা নষ্ট হওয়ার কথা বলে সড়কের পাশে সেটি রাখে। যাত্রীর সিটের পেছন থেকে যন্ত্রাংশ নেওয়ার কথা বলে পেছনের গ্রিলের দরজাটি খোলা হয়। তখন পেছনে আসা ‘সেই চক্রের অপর অটোরিকশা থেকে তিনজন নেমে ওই অটোরিকশার ভেতরে ঢুকে ওই ব্যক্তিকে জিম্মি করে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে, শ্বাসরোধে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে টাকা ছিনিয়ে নেয়। ওসি মহসীন বলেন, ‘মিঠু জানিয়েছে, ১২ বছরের অপরাধ জীবনে সে পাঁচবার জেলে গেছে, তিনমাস আগে জেল থেকে ছাড়া পেয়ে কোতোয়ালী এলাকায় মিঠুর নেতৃত্বে তিনটি ছিনতাই ঘটায়।

[৬] ছিনতাইয়ের জন্য টার্গেট করা ব্যক্তিকে তারা বলে- ধুর, পুলিশকে বলে- বিলা। এভাবে সংকেতের মাধ্যমে তারা নিজেদের মধ্যে তথ্য আদানপ্রদান করে। গ্রেপ্তার হওয়া সাব্বির এর এক ছেলে ঢাকার সায়েদাবাদে একটি মাদরাসার শিক্ষক। প্রায় ৮ বছর ধরে চট্টগ্রাম শহরে ছিনতাই-ডাকাতি করা সাব্বির এই প্রথম গ্রেপ্তার হয়। সর্বশেষ ৪৭ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের পর গোপালগঞ্জ থেকে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করেছে। তাদের মূল বাড়ি চট্টগ্রামের বাইরে, ছিনতাইয়ের পর তারা বাড়িতে চলে যায় অথবা চট্টগ্রাম ছেড়ে অন্য কোনো জেলায় যায়। কিছুদিন পর ফিরে এসে আবার কয়েকটি ছিনতাই করে পালিয়ে যায়। তারা অটো রিকশা গুলোর নাম্বার কৌশলে পরিবর্তন করে ছিনতাই কাজে ব্যবহার করে। সম্পাদনা: আখিরুজ্জামান সোহান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত