প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ভারতে অক্সফোর্ডের টিকার জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন চেয়েছে সেরাম ইনস্টিটিউট

লিহান লিমা: [১] সোমবার ভারতের পুনেভিত্তিক ফার্মা সেরাম ইনস্টিটিউটের সিইও আদার পুনাওয়াল্লা এক টুইট বার্তায় জানান, ‘অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও ব্রিটিশ ফার্মা অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি কোভিশিল্ড সুরক্ষিত এবং সহনশীল। কার্যকরীভাবে করোনা রুখতে জনগণের মধ্যে ব্যবহার করা যাবে। এই টিকার জরুরি ব্যবহারের জন্য ‘ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া’র কাছে অনুমতি চেয়ে আবেদন করা হয়েছে।’ রয়টার্স/এনডিটিভি

[৩] আবেদনে মোট চারটি ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা-নিরীক্ষার উল্লেখ করেছে সেরাম। একইসঙ্গে পরীক্ষার জন্য সেন্ট্রাল ড্রাগ ল্যাবরেটরিতে টিকার ১২টি ব্যাচ জমা দিয়েছে সেরাম।

[৪] অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলেছে, তৃতীয় ধাপের ক্লিনিক্যাল পরীক্ষায় তাদের টিকার ৯০ শতাংশ কার্যকারীতা পাওয়া গিয়েছে। ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর) এর তত্ত্বাবধানে ভারতে কোভিশিল্ডের তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষা চালাচ্ছে সেরাম। অনুমোদন পাওয়ার আগেই করোনা টিকার চার কোটি ডোজ তৈরি ফেলেছে সেরাম। সেরাম জানিয়েছে, আগামী বছরের মধ্যে ১০০ মিলিয়ন ডোজ সরবরাহ করতে পারবে।

[৫] কোভিশিল্ড ভারতে ৫০০ রুপির কাছাকাছি মূল্যে পাওয়া যাবে। সংরক্ষণের জন্য দুই থেকে আট ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রার প্রয়োজন হবে। তাই ভারতে একটি সরবরাহ করা খুব সহজ হবে বলেও সংস্থার পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে।

[৬] এর আগে মার্কিন ফার্মা ফাইজার ও জার্মানির বায়োএনটেক তাদের যৌথ উদ্যোগে তৈরি করোনার টিকার জরুরী ব্যবহারের জন্য ভারতের নিয়ন্ত্রক সংস্থার কাছে আবেদন করে। ফাইজার-বায়োএনটেকের দাবি, তাদের উদ্ভাবিত করোনার টিকা ৯৫ শতাংশ কার্যকর। তবে ফাইজারের প্রতিষেধক মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সংরক্ষণ করতে হবে বিধায় এর সরবরাহ প্রক্রিয়া জটিল ও ব্যয়সাধ্য।

[৭] দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস (এআইআইএমএস) জানিয়েছে, আগামী জানুয়ারির মধ্যে ভারতে দুটি করোনা টিকার জরুরি ব্যবহারের জন্য ছাড়পত্র দেয়া হতে পারে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত