প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দিল্লীতে আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে সরকারের প্রথম বৈঠক ফলাফল ছাড়াই শেষ, পরবর্তী আলোচনা বসবে ৩ ডিসেম্বর

সালেহ্ বিপ্লব: [২][ সম্প্রতি পাস হওয়া তিনটি কৃষি আইন বাতিল করতে হবে, প্রথম শর্ত কৃষকদের। তবে সরকার সে দাবির ধারেকাছেও নেই, বৈঠকে প্রস্তাব দিয়েছে একটি কমিটি গঠন করার। এই কমিটি ওই তিন আইনের ধারা-উপধারা খতিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত নেবে কৃষকদের দাবি সঠিক কি না। কমিটি গড়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে কৃষক প্রতিনিধিরা সাফ সাফ বলে দিয়েছেন, আন্দোলন চলবে। টাইমস অব ইন্ডিয়া

[৩] রাজপথে কৃষকদের আন্দোলন চলছে সে অনেক দিন হলো। দুদিন আগে অমিত শাহ আলোচনার আহ্বান জানালে কৃষক নেতারা ঘোষণা দেন, তাদের কাছে চার মাসের রসদ আছে। দাবি আদায়ের জন্যে প্রয়োজন হলে দিল্লীর পাঁচ প্রবেশ পথের সবগুলোতে অবরোধ করে বসে খাকবে কৃষকরা। এনডিটিভি

[৪] কৃষি আইনগুলোর ব্যাপারে ভারত সরকারের অবস্থান স্পষ্ট। খোদ নরেন্দ্র মোদী বলেছেন, আইন তিনটি কৃষকদের জন্যে মঙ্গলজনক। সে অবস্থান থেকেই দিল্লীতে মঙ্গলবার কৃষক নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন কেন্দ্রীয় কৃষিমন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তমার। টাইমস নাউ

[৫] কৃষক নেতা চন্দ সিং বলেন, তারা আমাদের কোনও কথাই শুনতেই চাননি। আমাদের দাবি সরাসরি নাকচ করেছেন। এ অবস্থায় রাস্তার আন্দোলনই আমাদের একমাত্র ভরসা। আল জাজিরা

[৬] তবে বৈঠক নিয়ে ইতিবাচক মনোভাব মন্ত্রীর। কৃষকদের আন্দোলন বন্ধ করার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, আলোচনায় আসুন। অনুষ্ঠিত বৈঠককে অত্যন্ত সফল হিসেবে অভিহিত করে তিনি জানান, ৩ তারিখ আবার বসবো। আমরা আলোচনার জন্য কৃষকদের একটা ছোট প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বসতে চাইছি। এএনআই

[৭] ধারাবাহিক আলোচনার ফাঁকে কৃষক ইউনিয়ন নেতাদের চা পানের আমন্ত্রণ জানান কৃষিমন্ত্রী। আমন্ত্রণ রক্ষা করে মন্ত্রীকে পাল্টা নিমন্ত্রণ করে এসেছেন কৃষক নেতারা। কৃষক নেতা কুলওয়ান্ত সিং সাধু জানান, তারা যেখানে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করছেন, সেখানকার লঙ্গরখানায় জিলাপি ও পাকৌড়া সহযোগে চা খেতে বলেছেন মন্ত্রীকে। এ নিয়ে বেশ হাসাহাসি হয়েছে, বৈঠকের গুমোট হাওয়া কেটে গিয়েছিলো কিছু সময়ের জন্য। পিটিআই

[৮] দ্য প্রিন্ট জানায়, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ভারতে চলমান কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন দিয়েছেন। মঙ্গলবার শিখদের এক অনুষ্ঠানে তিনি শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকারিদের স্বার্থরক্ষার অঙ্গীকার করেন। কানাডা কখনোই বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় ভারতের কৃষির পক্ষে কথা বলেনি, বরং ভর্তুকি প্রদানের বিরোধিতা করেছে। সেই কানাডার এখনকার কথা শুনে ভারত স্রেফ তা প্রত্যাখ্যান করে বলেছে, ট্রুডো ভুল তথ্যের ভিত্তিতে মন্তব্য করেছেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত