প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আলু-পেঁয়াজের দাম এখনও ঊর্ধ্বমুখী, স্বস্তি ডিমে

মহসীন কবির: [২] আলু-পেঁয়াজের দাম এখনো কমেনি। খুচরা বাজারে আলু কেজিপ্রতি ৪৫-৫০ টাকা আর দেশি পিয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০-৯০ টাকায়।বাড়তি রয়েছে চালের দরও।নতুন ধান উঠলেও বাজারে কোনো প্রভাব পড়েনি। রাজধানীর কাওরান বাজারসহ কয়েকটি এলাকায় খোঁজ নিয়ে এমন তথ্য জানা গেছে।

[৩] সরজমিনে দেখা যায়, কারওয়ান বাজারের পাইকারি দরে দেশি পিয়াজ ৬৫ থেকে ৭০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া মিশর ও চীন থেকে আমদানি করা পিয়াজ ৩৫ থেকে ৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। পাইকারি বাজারে আলু ৪০ থেকে ৪২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। আর খুচরা বাজারে আলুর দাম ৪৫ থেকে ৫০ টাকা।

[৪] শীতের সবজি বাজারে এলে আলু-পিয়াজের দাম কমবে বলে জানিয়েছিলেন খুচরা ব্যবসায়ীরা।বাজারে এখন শীতের সবজির সরবারহ বেড়েছে। দামও কমে আসছে।তবে আলু-পিয়াজের দাম কমার লক্ষণ নেই।রাজধানীর বাজারে কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা কমেছে কয়েকটি সবজির দাম।এতে ক্রেতাদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি ফিরলেও পুরোপুরি সন্তষ্ট নন। কারণ আগের মতোই বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে আলু ও পিয়াজসহ বেশ কয়েকটি পণ্য।

[৫] ক্রেতারা জানান, নতুন আলু উঠলেও পুরান আলুর দাম কমেনি। পেঁয়াজ বিক্রেতারা বলেন, আমদানি করা পিয়াজের দাম অনেক কমে এসেছে। তবে বাজারে দেশি পিয়াজ কম তাই দাম একটু বেশি।আমদানি করা পিয়াজের দাম কমলেও মানুষ দেশি পিয়াজ খান। সেজন্য দেশি পিয়াজের চাহিদা বেশি। তাছাড়া বাজারে আর কিছু দিনের মধ্যে দেশে উৎপাদিত গাছসহ পিয়াজ আসবে। তখন কিছুটা দাম কমতে পারে বলে জানান তারা।

[৬] সবজির দাম যখন বেশ চড়া ছিল তখন মুরগির ডিমের ডজন ছিল ১১৫ টাকা। সবজির দাম কমার সাথে সাথে ডিমের দামও কমে আসে। গত সপ্তাহ থেকে ডজন বিক্রি হয়ে আসছে ১০০ টাকা। কোনো কোনো এলাকায় ১০০ টাকায় ১৪টি ডিমও পাওয়া যাচ্ছে। ক্রেতারা বলেছেন, ডিম কিনে এখন বেশ স্বস্তিই পাচ্ছেন। তবে আলু আর পেঁয়াজের দুর্ভোগ সেই আগের মতোই আছে। কোনো কোনো দোকানে আরো আগ বাড়িয়ে আলুর কেজি এখন ৫০ টাকা রাখা হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলো মাঝেমধ্যে অভিযান চালালেও সেই সুফল গলির দোকান পর্যন্ত পৌঁছছে না।

সর্বাধিক পঠিত