প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অল্প সময়ের ব্যবধানে ৩ বস্তির আগুন রহস্যের জন্ম দিয়েছে, বললেন মেনন

ডেস্ক রিপোর্ট : ‘অল্প সময়ের ব্যবধানে তিনটি বস্তিতে আগুনের ঘটনা অবশ্যই রহস্যের জন্ম দিয়েছে’ বলে মন্তব্য করে বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, ‘ষড়যন্ত্র কি-না জানি না, তবে আগুন দিয়ে বস্তি উচ্ছেদ হবে বোকামি। রাষ্ট্র বা কোনো পক্ষ এমন কাজে ইন্দন দিলে এতে গণমানুষের আস্থা কমে। সাধারণ মানুষের জন্যই রাষ্ট্র, তাদের অধিকার হরণ করে রাষ্ট্রও ভালো থাকতে পারে না।’

সোমবার (২৩ নভেম্বর) দিনগত রাত ১১টা ৪৫ মিনিটের আগুন লাগে মহাখালীর সাততলা বস্তিতে। ফায়ার সার্ভিসের ১২ ইউনিটের চেষ্টায় রাত ২টার দিকে আগুন আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। এ আগুন নিভতে না নিভতেই পরদিন অর্থাৎ মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) বিকেল ৪টা ১৫ মিনিটে রাজধানী মোহাম্মদপুরে বাবর রোডের বিহারীপট্টি জহুরী মহল্লার পাশের বস্তিতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ১০ ইউনিটের চেষ্টায় বিকেল ৫টা ৫০ মিনিটের দিকে এ আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। সন্ধ্যা গড়িয়ে মাঝরাতেই আগুন লাগে মিরপুরের কালশীর একটি বস্তিতে। ফায়ার সার্ভিসের ১২টি ইউনিটের প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় রাত ৩টা ৩০ মিনিটের নিয়ন্ত্রণে আসে এ বস্তির আগুন।

২৬ ঘণ্টার ব্যবধানে রাজধানীর তিন বস্তিতে লাগা আগুনের বিষয়টিকে অনেকে ‘রহস্যজনক’ বলে মনে করছেন। ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও আগুনের ঘটনাকে ‘রহস্যজনক’ উল্লেখ করে একে অপরকে দোষারোপ করছেন। এ প্রসঙ্গে জাগো নিউজের কাছে নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন রাশেদ খান মেনন।

তিনি বলেন, ‘অল্প সময়ের ব্যবধানে তিনটি বস্তিতে আগুনের ঘটনা অবশ্যই রহস্যের জন্ম দিয়েছে। আর এ সময়ে ঘরবাড়িতে আগুন লাগার কথাও না। ফায়ার সার্ভিসও বলে থাকে ফাল্গুন, চৈত্র মাসে সাধারণত আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। বিভিন্ন গণমাধ্যমেও রহস্যের কথা বলা হয়েছে। আগুনের ঘটনা ষড়যন্ত্র হতেই পারে। এর আগেও এমন ষড়যন্ত্র হয়েছে।’

মেনন বলেন, ‘রহস্য হচ্ছে, প্রতিটি অগ্নিকাণ্ডের তদন্ত নিয়ে। আগুনের ঘটনায় একাধিক তদন্ত কমিটি হয়। কিন্তু রহস্যজনক কারণে কোনোটিই আলোর মুখ দেখে না। মানুষ এসবের কারণে রাষ্ট্রের প্রতি আস্থা হারায়।’

সাবেক এ মন্ত্রী বলেন, ‘বস্তিতে যারা বসবাস করেন তারা রাষ্ট্রের মানুষ। আগুনে তারা সর্বস্বান্ত হয়ে যান। বস্তিতে আগুনে যার ঘর পুড়ছে, সে জানেন কষ্টটা কী! কিছুই থাকে না তার। এই বেদনা সরকার, রাষ্ট্রের বোঝার কথা। বস্তি যদি উচ্ছেদ করতেই হয়, তাহলে বস্তিবাসীর সঙ্গে আলোচনা করেও করা যেতে পারে। সরকার এখানে প্রকল্প করলে বিকল্প উপায়েও সমাধান হতে পারে। কলকাতায় হয়েছে। অন্য দেশেও হয়েছে। তাদের পুনর্বাসন জরুরি। পুনর্বাসনের ব্যবস্থা না করে এভাবে আগুন দিয়ে সমাধান করতে চাইলে ফলাফল ভালো হয় না। মানুষের ক্ষোভ বাড়ে। তাই হচ্ছে এখন।’

এসব ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিতেও সরকারের প্রতি আহ্বান জানান রাশেদ খান মেনন। জাগোনিউজ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত