প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আজ মিলন দিবস

ডেস্ক রিপোর্ট : আজ শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর। নব্বইয়ের স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে অংশ নিতে গিয়ে শহিদ হয়েছিলেন জাসদ নেতা ডা. শামসুল আলম খান মিলন। স্বৈরাচারি সরকারের পতনে তার আত্মদান ছিল একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক। সে কারণেই এই দিনটিকে ডা. মিলন দিবস হিসেবে পালন করে থাকেন গণতন্ত্রকামী মানুষ।

স্বৈরাচারবিরোধী গণআন্দোলনের উত্তাল পর্বে ১৯৯০ সালের ২৭ নভেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় টিএসসি সংলগ্ন রাস্তায় ছাত্র-গণআন্দোলন দমনে স্বৈরশাসক এরশাদ লেলিয়ে দিয়েছিলেন সন্ত্রাসী বাহিনী। সেই বাহিনীর গুলিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় প্রাণ হারান জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) নেতা ও তৎকালীন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) যুগ্ম মহাসচিব ডা. শামসুল আলম খান মিলন।

ডা. মিলনের শহিদ হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে ছাত্র-গণআন্দোলন উত্তাল রূপ ধারণ করে গণঅভ্যুত্থানে পরিণত হয়। এরশাদ সামরিক স্বৈরাচার কারফিউ জারি করে গণঅভ্যুত্থান দমন করার শেষ অপচেষ্টা চালায়। কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, ঢাকা মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রী ২৮ নভেম্বর কারফিউ ও সেনাবহিনী-বিডিআর-আর্মড পুলিশের বাঁধা ভেঙে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নগরীর রাজপথে মিছিল করে। শিক্ষার্থীদের বাধভাঙা দুঃসাহসিক মিছিলের মধ্য দিয়ে এরশাদ সামরিক স্বৈরাচারের শাসন ও নিয়ন্ত্রণ ভেঙে পড়ে। রাজপথ ছাত্র-জনতার দখলে চলে যায়।

গণঅভ্যুত্থানের মুখে পরাজয় স্বীকার করেন সামরিক শাসক এরশাদ। ৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় পদত্যাগের ঘোষণা দেন। তিন জোটের রূপরেখা অনুযায়ী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে বাধ্য হয় এরশাদ সরকার।

১৯৬৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি গণআন্দোলনের উত্তাল দিনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শামসুজ্জোহা তৎকালীন ইপিআর বাহিনীর পশ্চিম পাকিস্তানি ক্যাপ্টেনের নির্দেশে গুলিতে নিহত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার পর গণআন্দোলন পরিণত হয়েছিল গণঅভ্যুত্থানে। সেই আন্দোলনের মুখে পতন হয়েছিল স্বৈরাচারী আইয়ুব খানের। ঠিক তেমনই ১৯৯০ সালের ২৭ নভেম্বর ডা. মিলনের আত্মদান গণআন্দোলনকে এরশাদ সামরিক স্বৈরাচার পতনের গণঅভ্যুত্থানে পরিণত করেছিল।

ডা. মিলন স্কুল জীবন থেকেই জাসদ সমর্থিত ছাত্রলীগ ও সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে ছাত্র-গণআন্দোলনে যুক্ত হন। তিনি জাসদ সমর্থিত ছাত্রলীগের ঢাকা মেডিকেল কলেজ শাখার সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পেশাজীবনে প্রবেশ করার পরও জাসদের রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে যুক্ত ছিলেন।

পেশাগত সততা, দক্ষতা, সাংগঠনিক কর্মতৎপরতায় ডা. মিলন ছিলেন অপ্রতিদ্বন্দ্বী। ডা. মিলন তৎকালীন বিএমএ’র নির্বাচিত যুগ্ম সম্পাদক, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ শিক্ষক সমিতির কোষাধ্যক্ষ এবং ঢাকা কলেজের বায়োকেমিস্ট বিভাগের প্রভাষক ছিলেন।সামরিক শাসনবিরোধী গণআন্দোলনের সমান্তরালে গণমুখী স্বাস্থ্যনীতি প্রণয়নের দাবিতে আন্দোলন গড়ে তুলতে ধারাবাহিকভাবে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন।

দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ব্যাপক কর্মসূচি নিয়েছে। বরাবরের মতো এবারও আওয়ামী লীগ দেশবাসীকে সঙ্গে নিয়ে যথাযথ মর্যাদায় দিবসটি পালনে নানা কর্মসূচি নিয়েছে। এ উপলক্ষে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় আওয়ামী লীগ ঢাকা মেডিকেল কলেজ চত্বরে ডা. শামসুল আলম খান মিলনের সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতের কর্মসূচি পালন করবে।

দিবসটি উপলক্ষে জাসদের জাসদ কেন্দ্রীয় কমিটি এবং জাতীয় যুব জোট, ছাত্রলীগসহ সহযোগী সংগঠনসমূহ শুক্রবার সকাল সাড়ে ৭টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজে শহিদ ডা. মিলনের সমাধি ও সকাল ৮টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় টিএসসি এলাকায় শহীদ ডা. মিলনের স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন। সকাল ৯টায় শহিদ কর্নেল তাহের মিলনায়তনে শহিদ ডা. মিলনের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করে শ্রদ্ধা জানানো হবে। এছাড়াও ভোর ৬টায় জাসদ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হবে।

দিবসটি উপলক্ষে সকাল ৮টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ চত্বরে শহিদ মিলনের সমাধিতে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শ্রদ্ধা নিবেদন করবে। এছাড়াও সেখানে আলোচনা সভা, ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে।

জাসদ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিবৃতি

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সভাপতি হাসানুল হক ইনু ও শিরীন আখতার শহিদ ডা. মিলন দিবস উপলক্ষে এক বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে জাসদ নেতা শহীদ ডা. শামসুল আলম খান মিলনের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে তার সংগ্রামী জীবন থেকে শিক্ষা নিয়ে সমাজ প্রগতির সংগ্রাম এগিয়ে নেওয়ার জন্য জাসদের নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। তারা যথাযথ মর্যাদায় শহিদ ডা. মিলন দিবস পালনের জন্য দলের সব জেলা ও উপজেলা কমিটির প্রতি আহ্বান জানান। সারাবাংলা

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত