প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এত ‘সরি’ লিখল কে?

ডেস্ক রিপোর্ট: বরিশালে কোতোয়ালি মডেল থানার সামনে বড় অক্ষরে বেশ কয়েকবার লেখা রয়েছে ইংরেজী ভাষায় ‘সরি’ (Sorry)। শুধু থানার সামনেই নয়, নগরীর জিয়া সড়ক এবং সদর রোড এলাকার সড়কেও বেশ কয়েকবার বড় করে লেখা রয়েছে ‘সরি’ অর্থাৎ দু:খিত।

বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বেশ আলোচনা শুরু হয়েছে। যদিও সেখানে বিভিন্ন লোকজন সেটাকে প্রেম বিষয়ক ভাবলেও বিশিষ্টজনরা মনে করছেন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বিভ্রান্ত করতে এমনটা কেউ করতে পারে।

গতকাল মঙ্গলবার সকালে বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানার সামনের লাইন রোডে এবং জিয়া সড়ক এলাকায় দেখা যায় এমন লেখা। এরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছবিগুলো ছড়িয়ে পরলে আলোচনার সৃষ্টি হয়।

কোতোয়ালি মডেল থানার সামনের লাইন রোডে গিয়ে দেখা যায়, চকেরপুলে ওঠার আগে সড়কে, কোতোয়ালি মডেল থানার ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের সামনে এবং থানার সামনে ‘সরি’ লেখা রয়েছে স্প্রেযুক্ত সাদা রঙ দিয়ে। একইভাবে খবর পেয়ে নগরীর জিয়া সড়কে যাওয়া হলে দেখা যায় ওই সড়কের তিন স্পটে লেখা রয়েছে ‘সরি’। এ ছাড়া ওই এলাকার একতা স্মরণী এবং কিছু দেয়ালেও দেখা গেছে এই লেখা।

বিএম কলেজ রক অ্যান্ড রোল নামের একটি ফেসবুক গ্রুপে মো. নাজমুল হাসান নামের এক ব্যক্তি ‘সরি’ লেখা ছবিগুলো পোস্ট করেন এবং লেখেন ‘প্রিয় মানুষটার রাগ ভাঙানোর জন্য সে জিয়া সড়ক একতা স্মরণী থেকে সরি লেখা শুরু করেছে, এই সরি সদর রোড পর্যন্ত দেখা গেছে। এই সরির শেষ কোথায় হয়েছে জানা নেই। কে কার জন্য লিখছে সেটাও কেউ জানে না। রাগ করে যেন কারও প্রিয় মানুষ হারিয়ে না যায়, দোয়া রইল পূর্ণতা পাক তার ভালোবাসা।’

এই লেখার নিচে অধিকাংশ কমেন্টই প্রেমজনিত ভাবনা নিয়ে। তবে এর বিপরীত কথা বলছেন নগরীর বিশিষ্টজনরা।

বরিশালের বিশিষ্ট সাংবাদিক ও গবেষক আনিসুর রহমান খান স্বপন বলেন, ‘আইনশৃঙ্খল বাহিনীর মধ্যে বিভ্রান্তি ছড়াতেও এমনটা কেউ লিখতে পারে। শুধু তাই নয়, রাজনৈতিক বিভ্রান্তি ছড়াতেও এমনটা করতে পারে। বিষয়টিকে হেলা-ফেলা করে দেখলে চলবে না। এই লেখা কোনো কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছে কি না সেটাও খতিয়ে দেখা এবং তদন্ত করা উচিৎ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর।’

কোতোয়ালি মডেল থানার ইনচার্জ নুরুল ইসলাম বলেন, ‘বিষয়টিকে আমরা গুরুত্বসহকারেই দেখছি। বিষয়টি তদন্তে পুলিশের একটি টিম কাজ করছে।’

সর্বাধিক পঠিত