প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রভাষ আমিন: লেখায়, চলনে, বলনে, চিন্তায় তিনি মুক্তিযুদ্ধ, অসাম্প্রদায়িকতা, প্রগতিশীলতাকে ধারণ করতেন, মুনীর ভাই

প্রভাষ আমিন: সকালটা এতো বড় ধাক্কা হয়ে আসবে ভাবিনি। বুলবুল ভাই লিখলেন, ‘মুনীর ভাই ছবি হয়ে গেলেন।’ আমি বিশ্বাস করতে পারিনি, এখনো বিশ্বাস হচ্ছে না। মুনীর ভাই দৈনিক সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ছিলেন। তবে আমি মুনীর ভাইকে চিনতাম সিপিবির নেতা হিসেবে। স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে পুরানা পল্টন মোড়ের সিপিবির সেই খোলামেলা অফিসে দূর থেকে দেখতাম। মোর্শেদ ভাই একটা ফিফটি সিসি চালাতেন। মুনীর ভাইও কি একটা ছোট মোটর সাইকেল চালাতেন? রাজনীতি ছেড়ে মুনীর ভাই পুরোদস্তুর সাংবাদিক বনে গেলেন।

লেখায়, চলনে, বলনে, চিন্তায় তিনি মুক্তিযুদ্ধ, অসা¤প্রদায়িকতা, প্রগতিশীলতাকে ধারণ করতেন। আমাকে স্নেহ করতেন। সেটা টের পেতাম। দেখা হলেই কোনো লেখার প্রশংসা করতেন। ব্যস্ত না থাকলে টক শোতে আসতেন। কিছু কিছু বিষয়ে মুনীর ভাইকে ছাড়া আমার চলতোই না। তাই কখনো কখনো জোর করতাম। এখন তো শত জোর করেও পাবো না তাকে। কদিন আগে টক শোর জন্য ফোন করতেই, মৃদুকণ্ঠে বললেন, আমি অসুস্থ, হাসপাতালে। আমি আর কথা বাড়াইনি। প্রার্থনা করেছি আর অপেক্ষা করেছি। কিন্তু আমার সে অপেক্ষা আর ফুরোলো না। দেশজুড়ে যখন সাম্প্রদায়িক শক্তির আস্ফালন, তখন মুনীর ভাইয়ের বিদায় আমাদের লড়াইটা আরো কঠিন করে দিলো। বিদায় কমরেড। ভালো থাকবেন।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত