প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বেসরকারি হাসপাতাল-ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিকের মান অনুযায়ী নির্ধারিত হবে সেবামূল্য

শিমুল মাহমুদ, লাইজুল ইসলাম, শরিফ শাওন: [২] মূল্যতালিকা টাঙানো, নিয়মিত পরিদর্শন ও জবাবদিহিতা বাড়ানোর তাগিদ দিলেন বিশেষজ্ঞরা।

[৩] স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, দেশে বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার রয়েছে ১১ হাজার ৯৪০টি। এর মধ্যে লাইসেন্স ছাড়া চলছে ২৯১৬টি।

[৪] ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক নাসরিন সুলতানা বলেছেন, সরকারি কোনও নির্দেশনা না থাকায় একেক হাসপাতালের চার্জ একেক রকম। এতে রাগীরা বিভ্রান্ত হচ্ছেন, ঠকছেন। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ঝগড়াঝাটির পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। সরকার যদি মেশিনারিজ ও সার্ভিস ওয়েজ ক্যাটাগরিতে সেবামূল্য নির্ধারণ করে, তাহলে একদিকে মানুষ তার সামর্থ্য অনুযায়ী হাসপাতালে যাবে। আবার হাসপাতাল, ক্লিনিকগুলো একটা নিয়মের মধ্যে আসবে।

[৫] বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক মালিক সমিতির সভাপতি মনিরুজ্জামান ভূঁইয়া বলেন, মূল্য নির্ধারণ দুটি ক্যাটাগরিতে হওয়া উচিত। যাদের সেবার মান ভালো, উন্নত মেশিনারিজ রয়েছে, বিনিয়োগ বেশি-তারা এ ক্যাটাগরি। বাকিরা থাকবে বি ক্যাটাগরিতে। এলাকার বিষয়টিও বিবেচনায় নেয়া উচিত। ধানমন্ডি-বারিধারা-গুলশান আর মফস্বলের হাসপাতালের পরিচালনা খরচ এক নয়।

[৬] তবে স্বাচিপ সভাপতি অধ্যাপক ইকবাল আর্সনাল বলেন, ল্যাবের যন্ত্রপাতি, অভ্যন্তরীণ পরিবেশ, সেবার মান এবং দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার তারতম্য থাকে। ফলে দাম নির্ধারণের সিদ্ধান্ত সঠিক হবে বলে মনে করি না। এগুলো স্ট্যান্টবাজি ছাড়া কিছুই না।

[৭] জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, দাম নির্ধারণ করা হলে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির যন্ত্রপাতি ব্যবহারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অনীহা তৈরি হতে পারে। প্রতিটি রিপোর্টের মূল্যসীমা নির্ধারণে সরকারের একটি নীতিমালা প্রয়োজন।

[৮] স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের (হাসপাতাল) পরিচালক ডা. ফরিদ মিয়া বলেন, ক্যাটাগরি ও সেবামূল্য নির্ধারণের জন্য সংশ্লিষ্টদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করবো। সেবার মান বিবেচনায় ক্যাটাগরি তৈরি করে মূল্য নির্ধারণ করা হবে। সম্পাদনা: সালেহ্ বিপ্লব

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত