প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দৌলতদিয়া ঘাটে ট্রাকে চাঁদাবাজির দায়ে গ্রেপ্তার-১৭

কামাল হোসেন: [২] রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় পন্যবাহি ট্রাকে চাঁদাবাজির দায়ে দালাল চক্রের ১৭ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ।

[৩] গত ১৭ নভেম্বর দিনগত মধ্য রাতে ঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এর আগে পণ্যবাহী ট্রাকের চালক যশোর এলাকার মো. শরীফুল ইসলাম বাদী হয়ে তাদের বিরুদ্ধে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন।

[৪] গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- রাজীব মন্ডল (২৩),আজিজুল ইসলাম (২৬), বাহাদুর খান (৩০), মোঃ হাফিজ (২৫), রাসেল মন্ডল (২১), মোঃ আলামিন (২৭), রাজু সেক (৩১), আনোয়ার হোসেন বিল্লাল (২৪), মোস্তফা সেক (২৬), খোকন ফকির (২২), দেলোয়ার হোসেন (২৪), জুয়েল সেক (২১), টিটু সেক (২০), মিন্টু ফকির (২৫), ইমরান (২৪), ফজলুল খাঁন (৪০), এবং শফিক (২৫) এছাড়াও মামলার এজাহারে অজ্ঞাত আরো ৭-৮ জনকে আসামী করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের অধিকাংশই দৌলতদিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

[৫] মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ট্রাক চালক শরিফুল ইসলাম ১৭ নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর যশোরের মনিরামপুর হতে ট্রাকভর্তি মাছ বোঝাই করে সিলেটের উদ্দ্যেশে রওনা দেন। রাত সোয়া ১১ টার দিকে দৌলতদিয়া ক্যানালঘাট নামক এলাকায় এসে মহাসড়কে সৃষ্ট যানজটে আটকা পড়েন।

[৬] এসময় আটক আসামিরা সংঘবদ্ধ হয়ে লাঠি সোটা নিয়ে তার ট্রাকের সামনে এসে ২০ হাজার টাকা চাঁদাদাবি করে। তিনি আপত্তি করলে তার ট্রাকের ওপর হামলা চালিয়ে লুকিং গ্লাস ভাংচুর সহ অন্যন্যা ক্ষতি সাধন করে এবং তাকে মারধর করে। এ সময় বাধ্য হয়েই তাদের কে সঙ্গে থাকা ৪হাজার টাকা চাঁদা হিসাবে প্রদান করা হয়। বাকী ১৬হাজার টাকা দ্রুতই দেয়ার কথা বলে হুমকি প্রদান করে যে ঘাট এলাকা দিয়ে পারাপার হলে তাদেরকে প্রতি মাসে ২০হাজার করে টাকা চাঁদা দিতে হবে অন্যথায় প্রানে মেরে ফেলা হবে। এসময় তাদের ভয়ে ডাক চিৎকার করলে আশেপাশের লোকজন এসে ৭জনকে আটক করে থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। পরে আটক ৭জনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী বাকী ১০জন আসামির নাম ঠিকানা উদ্ধার করে তাদেরকে গ্রেপ্তার করে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ।

[৭]এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ্ আল তায়াবীর বলেন, গ্রেপ্তারকৃত আসামীদের কে বুধবার আদালতের মাধ্যমে রাজবাড়ী কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাত আসামীদের গ্রেপ্তারের জন্য চেষ্টা চলছে। দৌলতদিয়া ঘাটকে চাঁদাবাজ ও দালাল মুক্ত রাখতে পুলিশ কঠোর অবস্থানে রয়েছে বলে জানান তিনি।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত