প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ায় ট্রাম্পের ২৭০ মিলিয়ন ডলার ঋণ মাফ, করও দেননি

রাশিদ রিয়াজ : নিউইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ২০১০ সাল থেকে এধরনের ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হতে থাকেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। শিকাগোতে তার বহুতল ভবন উন্নয়নে এ ঋণ নেয়া হয়েছিল। ট্রাম্পের কর তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায় শিকাগোতে ট্রাম্পের ইন্টারন্যাশনাল হোটেল এন্ট টাওয়ার আর্থিক সমস্যায় পড়েছে দেখানো হয়েছে। তাকে ঋণ পরিশোধের জন্যে বছরের পর বছর সময়সীমা বাড়িয়ে দেয়ার পরও ট্রাম্প ঋণ পরিশোধ করেননি। অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো লোকসান গুণেছে এমন তথ্যে ঠিকমত করও পরিশোধ করেননি মার্কিন প্রেসিডেন্ট। বলতে গেলে কোনো কর দেননি ট্রাম্প। তবে ট্রাম্পের এসব কোম্পানি দেখভাল করেন যিনি সেই এ্যালান গার্টেন নিউইয়র্ক টাইমসকে বলেন ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হলেও সেসব প্রতিষ্ঠানের কর ঠিকই দিয়েছেন ট্রাম্প। গার্টেন বলেন ২০০৮ সালে মন্দার কারণেই ট্রাম্পের রিয়েল এস্টেট ব্যবসা মার খায়।

তবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দিন কয়েক আগে টাইকুন ব্যবসায়ী ট্রাম্পের ঋণ মওকুফের এ খবর তাকে রাজনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করবে বলেই বিশ্লেষকদের ধারণা। ট্রাম্প ডয়চে ব্যাংকের কাছে শিকাগো টাওয়ার উন্নয়নে ৭’শ মিলিয়ন ঋণ চাইলে ব্যাংকটি ৬৪০ মিলিয়ন ঋণ দেয় কিন্তু ঋণ প্রাপ্তি বিলম্ব ঘটায় নির্মাণ কাজ এখনো শেষ করা যায়নি। ট্রাম্প ব্যাংকটির কাছে আরো ঋণ চাইলে তা দিতে অস্বীকার করায় ফোর্টরেস ইনভেস্টমেন্ট গ্রুপের সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প মামলা করে দেন এবং ব্যাংকটি আরো ১৩০ মিলিয়ন ঋণ দিতে বাধ্য হয়। ২০১০ সালে ট্রাম্পের ফেডারেল ট্যাক্স রিটার্ন ও ঋণ তথ্য থেকে জানাযায় ওই ব্যাংক ও ফোর্টরেস কোম্পানির সঙ্গে যোগসাজসে ট্রাম্প দেখান ২৭০ মিলিয়ন ঋণ তাকে মাফ করে দেয়া হয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত