প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দাবি না মানায় ব্যাংককের রাস্তায় আন্দোলনে ফিরলেন থাই বিক্ষোভকারীরা

লিহান লিমা: [২] থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান ও-চাকে পদত্যাগের জন্য বিক্ষোভকারীদের বেঁধে দেয়া তিন দিনের সময়সীমা পার হয়েছে শনিবার রাত। রোববার বিকেল ৪টায় ব্যাংককের রাস্তায় পুনরায় জড়ো হন বিক্ষোভকারীরা। সিএনএ/বিবিসি

[৩] গত ১৫ অক্টোবর থাই প্রশাসন জরুরী অবস্থা তুলে নেয়ার পর এই প্রথমবারের মতো এতো জনসমাবেশ দেখা গিয়েছে। এদিন ব্যাংকের রাজপথে হাজার হাজার মানুষ রাজতন্ত্র ও সরকারবিরোধী স্লোগান দেন। গত মধ্য-জুলাই থেকে চলমান এই বিক্ষোভে আন্দোলনকারীরা রাজতন্ত্রের সংস্কার, সামরিক জান্তা সরকারের প্রবর্তিত সংবিধান সংশোধন ও ২০১৪ সালে সেনা অভ্যূত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসা তৎকালীন সেনাপ্রধান প্রায়ুথের পদত্যাগ চাইছেন।

[৪] বিক্ষোভের নেতা জাতুপাত বোনপাতারাকাসা বলেন, ‘ছাত্র-জনতা এখন প্রায়ুথ দূর হও স্লোগান দিচ্ছেন। যদি তিনি পদত্যাগ না করেন, তবে তাকে বিদায় জানানোর জন্য আমাদের রাস্তায় আসতে হবে।’

[৫] এদিকে টুইট বার্তায় থাই প্রধানমন্ত্রীর অফিস বলছে, তিনি এই মুর্হুতে পদত্যাগ করবেন না। যে সংকট চলছে তা পার্লামেন্টে সমাধান হওয়া উচিত। আগামী সোমবার ও মঙ্গলবার থাই পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশন আহ্বান করা হয়েছে। তবে বিরোধী ও সমালোচকরা পার্লামেন্টের ওপর আস্থা রাখতে পারছেন না। কারণ থাই পার্লামেন্ট সামরিক জান্তা সরকারের নিয়ন্ত্রিত।

[৬] থাই রাজপ্রাসাদ এখনো বিক্ষোভ নিয়ে সরাসরি কোনো মন্তব্য করে নি। তবে শনিবার এক ভিডিওতে সরকার-বিরোধী বিক্ষোভের সময় রাজতন্ত্রের সমর্থনে ব্যানার নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকা এক ব্যক্তির প্রশংসা করেন থাই রাজা। থাই গণমাধ্যম বলছে, এর অর্থ রাজা রাজতন্ত্রের সমর্থকদের এগিয়ে আসার বার্তা দিয়েছেন।

[৭] সোমবার থাই বিক্ষোভকারীরা থাইল্যান্ডের জার্মান দূতাবাসের সামনে মার্চ করার পরিকল্পনা করেছেন। বর্তমান রাজা মহা ভাজিরালংকন এখন থাইল্যান্ডে অবস্থান করলেও বছরের অর্ধেক সময় হেরেমের সঙ্গিনীদের নিয়ে তিনি জার্মানিতে দিন কাটান। অধিকার কর্মী পিয়ারাথ চংতেপ বলেন, ‘জার্মান দূতাবাস অভিমুখে যাত্রার অর্থ হচ্ছে রাজার আচরণে জনগণ ক্ষুদ্ধ।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত