প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

করোনাভাইরাসে উপসাগরীয় দেশগুলোর ২২৪ বিলিয়ন ডলারের তেল বিক্রি হ্রাস

রাশিদ রিয়াজ : আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের চাহিদা কমে যাওয়ার পাশাপাশি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যহাসের কারণে মধ্যপ্রাচ্যের তেল উৎপাদনকারী দেশগুলোর অর্থনীতি চলতি বছর ভয়াবহ সংকোচনের মুখে পড়েছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বা আইএমএফ জানিয়েছে, ইরান ও পারস্য উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ বা পিজিসিসি’ভুক্ত তেল রফতানিকারক দেশগুলোর প্রকৃত জিডিপি এ বছর প্রায় ৬ থেকে ৬.৬ শতাংশ পর্যন্ত সঙ্কুচিত হবে। আইএমএফ-এর কর্মকর্তা জিহাদ আজৌর বলেছেন, করোনাভাইরাসের কারণে এসব দেশের সম্মিলিত তেল বিক্রির পরিমাণ আর্থিক মূল্যে কমবে ২২৪ বিলিয়ন ডলার। অয়েল প্রাইস ডটকম

তবে আগামী বছর ইরানসহ অন্যান্য তেল রপ্তানিকারকদের অর্থনীতি দ্রুততম গতিতে শতকরা ৩.৪ ভাগ প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে। অন্যদিকে পিজিসিসিভুক্ত দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি হবে ২.৩ শতাংশ। বাহরাইন, কুয়েত, ওমান, কাতার, সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত হচ্ছে পিজিসিসিভুক্ত দেশ। এই সংস্থার বাইরের আঞ্চলিক তেল রপ্তানিকারক দেশগুলো হচ্ছে- আলজেরিয়া, ইরান, ইরাক, লিবিয়া ও ইয়েমেন। আজৌর বলেন, আঞ্চলিক দেশগুলোর তেল খাতের জিডিপি ২০২০ সালে ৭.৭ শতাংশ পর্যন্ত পড়ে যাবে, আর সৌদি আরবের গোটা অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি ৫.৪ শতাংশ সংকুচিত হবে। এছাড়া, গত মে মাসে রাশিয়া এবং ওপেক তেল উৎপাদন কমানোর যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তার দীর্ঘমেয়াদি প্রভাবে আগামী বছর তেলের দাম উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বাড়বে বলেও আইএমএফ ভবিষ্যদ্বাণী করেছে।

ইরানের বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা অব্যাহত থাকলেও বিকল্প পথে তেল রফতানি অব্যাহত রাখতে সমর্থ হয়েছে দেশটি। একই সঙ্গে দেশটির বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় চীন ও রাশিয়ার কাছ থেকে অস্ত্র ক্রয়ের চুক্তি করেছে তেহরান। ইরান ইতিমধ্যে অস্ত্র রফতানির ঘোষণাও দিয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত