প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘অন্যের জীবনের মধ্যে বাঁচুক আমার ছেলে’, অঙ্গ দান করে ছেলের মৃত্যুশোক ভুলতে চান বাবা-মা

ডেস্ক রিপোর্ট : অঙ্গদানের মধ্যে দিয়ে ছেলের মৃত্যু শোক ভুলতে চাইছেন ভট্টাচার্য্য দম্পতি। এই ঘটনা ভারতের পশ্চিম বঙ্গ রাজ্যের উত্তর ২৪ পরগনার ভাটপাড়া পাঁচ মন্দির এলাকার। মৃতের নাম সংগ্রাম ভট্টাচার্য্য। মৃত্যুর পর সোমবার দুপুরে তার অঙ্গ দান করেছেন মৃতের পরিবারের সদস্যরা। মৃত্যুর আগে সংগ্রামের ইচ্ছা ছিল মৃত্যুর পরে তাঁর দেহ যেন দান করা হয়।

তার সেই ইচ্ছেতেই এদিন তাঁর হার্ট, চক্ষু, লিভার এবং চামড়া দান করা হয়েছে। প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার ভাটপাড়ার বাড়ি থেকে বাইক নিয়ে কাজে বেরিয়ে পথ দুর্ঘটনা ঘটে পেশায় মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভ সংগ্রাম ভট্টাচার্য্যের। মাথায় আঘাত পান তিনি। প্রথমে কল্যাণী জে এন এম ও পরে তাঁকে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই ব্রেন ডেথ হয় সংগ্রাম ভট্টাচার্য্যের (৩১)।

সোমবার দুপুরে সংগ্রামের দেহের বিভিন্ন অঙ্গ দান করা হয় তাঁর পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে। মৃতের পরিবারের আরও এক সদস্য জ্যোতির্ময় ভট্টাচার্য্য এক বছর আগে মারা যান। তিনি ও তাঁর অঙ্গ দান করেছিলেন। জ্যোতির্ময় বাবু সংগ্রামের জ্যাঠা ছিলেন।

আর সেই জ্যাঠার পদাঙ্ক অনুসরণ করে এবার সংগ্রামের দেহের বিভিন্ন অঙ্গ দান করা হল। এই বিষয়ে মৃতের বৃদ্ধ বাবা সস্বিম ভট্টাচার্য ও মা দেবী ভট্টাচার্য বলেন, “ছেলে তো চলেই গেল। মৃত্যুর আগে ওর ইচ্ছে ছিল ওর অঙ্গ যাতে অন্যের সাহায্যে কাজে লাগে। সেই মত অঙ্গ দান করা হল।”

 

ভাটপাড়ার তরতাজা যুবক সংগ্রাম ভট্টাচার্যের মৃত্য়ুর পরই ফেসবুকে সমবেদনা জানান তাঁর বন্ধু ও অনুগামীরা। পরিবারের অঙ্গদানের সিদ্ধান্তকে কুর্ণিশ জানান তাঁরা। সুমন্ত চট্টোপাধ্য়ায় নামে একজন অনুরাগী সংগ্রামের ফেসবুকে ওয়ালে লিখেছেন, ”ভাই সংগ্রাম এত তাড়াতাড়ি আমাদের ছেড়ে না ফেরার দেশে পাড়ি দিলি, তোর অকাল প্রয়াণ কিছুতেই বিশ্বাস হচ্ছে না”। অভিক জানা বলে আরও এক অনুরাগী লিখেছেন, ” আমি গর্বিত যে সংগ্রাম ভট্টাচার্য আমার দাদা, কত মানুষের জীবন বাঁচিয়ে দিয়ে গেছে, আমার দাদা যে কাজটা করে গিয়েছেন তার জন্য় আমি গর্বিত”।

 

সংগ্রামের মৃত্য়ুর পর তাঁর ফেসবুকে ওয়ালে কেউ কেউ পুরনো স্মৃতির কথা তুলে ধরেছেন। জনসমক্ষে উজাড় করে লিখেছেন পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটানোর কথা। আবার তাঁর অঙ্গদানের সিদ্ধান্ত যেন তাঁকে অমরত্ব প্রদান করেছে বলেও লিখেছেন অনেকে। কৌশিক দাস নামে আরও এক অনুরাগী লিখেছেন, ”আমাদের সংগ্রাম অমর হয়ে রইল”

করোনা আবহের মধ্য়েও অঙ্গদানের নজির তৈরি করেছেন সংগ্রাম ভট্টাচার্য। তাঁর এই মহান উদ্য়োগকে স্বাগত জানিয়ে কেউ কেউ লিখেছেন”তুমি এভাবেই বেঁচে থাকবে সবার মধ্য়ে”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত