প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ফাখরুল চৌধুরী: মিডিয়া হাউসগুলোতে বঙ্গবন্ধু কর্নার চাই

ফাখরুল চৌধুরী:  প্রতিটি সংবাদপত্র ও ইলেক্ট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়া হাউসে বঙ্গবন্ধু কর্নার চালুর প্রস্তাব করছি।

এজন্য , অতিরিক্ত জায়গা বরাদ্দ বা অর্থ বরাদ্দের প্রয়োজন নেই। প্রয়োজন জাতির পিতার প্রতি ভালোবাসা , তার আদর্শের প্রতি কমিটমেন্ট , ইতিহাসের কাছে সৎ থাকার , নতুন প্রজন্মকে ইতিহাসনিষ্ঠ করার , ইতিহাস থেকে অনুপ্রাণিত করার মাধ্যমে জাতির পিতার স্বপ্ন , একটি শোষণমুক্ত , গণতান্ত্রিক , মানবিক মর্যাদাবোধসম্পন্ন বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য , নতুন প্রজন্মকে তৈরী করার অঙ্গীকার।

প্রতিটি মিডিয়া হাউসেই আছে একটি লাইব্রেরি। এই লাইব্রেরিরই একটি অংশে আমরা চাইলেই গড়ে তুলতে পারি বঙ্গবন্ধু কর্নার। লাইব্রেরির জন্য বরাদ্দকৃত অর্থের একটি অংশ দিয়েই , বঙ্গবন্ধুর ওপরে লেখা প্রয়োজনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ বই গুলো সংগ্রহ করা যায়। সংগ্রহ করা যায় তার ভাষণ সহ , নানা ঐতিহাসিক ফটোগ্রাফ , অডিও ভিজ্যুয়াল ডকুমেন্টস ও স্মারক।
প্রয়োজনে , বিভিন্ন ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে বই , অডিও ভিজ্যুয়াল এবং অন্যান্য স্মারক অনুদান হিসেবেও নেয়া যেতে পারে।

একটি মিডিয়া হাউসে গবেষণার প্রয়োজনেই বঙ্গবন্ধু সংক্রান্ত নানা গুরুত্বপূর্ণ দলিল , বইপত্র , পত্রিকা , ডকুমেন্টস , অডিও ভিজ্যুয়াল ইত্যাদির আর্কাইভ থাকার কথা। অনেক ক্ষেত্রে থাকেও। কিন্তু , আলাদা করে বঙ্গবন্ধু কর্নার করার প্রয়োজন এই জন্যই যে , এধরণের একটি ডেডিকেটেড জায়গা , যে ভিজ্যুয়াল ইফেক্ট তৈরী করে , বঙ্গবন্ধু ও তার অবদান এবং সমসাময়িক কালে বঙ্গবন্ধুর প্রাসঙ্গিকতার যে ভিসিবিলিটি দেয় , তার একটি রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক তাৎপর্য রয়েছে।

লা মেরিডিয়ান , একটি ফাইভ ষ্টার হোটেল ও খুব সুন্দর ও সমৃদ্ধ একটি বঙ্গবন্ধু কর্নার করেছে।

অগ্রণী ব্যাংকার এম ডি শামস-উল ইসলাম সেই দু ‘ হাজার দশ সালে মৌলভীবাজারের আঞ্চলিক প্রধানের দায়িত্ব পালনের সময় স্থাপন
করেছিলেন প্রথম বঙ্গবন্ধু কর্নার। আজ , দেশের বিভিন্ন ব্যাঙ্কের প্রধান শাখা গুলোতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বঙ্গবন্ধু কর্নার। এইতো সেদিন , বন্ধু , মাসরুর আরেফিনের কাছে ( সিটি ব্যাঙ্কের এম ডি ) একটি কাজে ওদের হেড অফিসে গেলে , সে ভীষণ গর্বের সঙ্গে ঘুরে দেখালো সিটিব্যাংকের দারুন সমৃদ্ধ ও রুচিশীল ইন্টেরিয়র করা মুজিব কর্নার।

দেশের অনেক কমিউনিটি সেন্টারে , স্কুলে , কলেজে , শায়খ ভাইর পাঞ্জেরী সহ নানা পুস্তক প্রকাশনী সংস্থার হেড অফিসে গড়ে তোলা হয়েছে বঙ্গবন্ধু কর্নার।

কিন্তু , আমার জানা মতে , কোনো মিডিয়া হাউসে বা সংবাদপত্রের অফিসে আজ ও বঙ্গবন্ধু কর্নার গড়ে তোলা হয়নি। যদি হয়ে থাকে , তবে আমার সে অজ্ঞানতার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।

আমি যখন মিডিয়া হাউস গুলোতে বঙ্গবন্ধু কর্নার করার প্রয়োজনীয়তার কথা কোথাও কোথাও বলেছি , অনেক প্রতিথযশাকে বলতে শুনেছি যে , সংবাদপত্র বা মিডিয়াতে বঙ্গবন্ধু কর্নার করা হলে নাকি মিডিয়ার ক্রেডিবিলিটি ও নিরপেক্ষতা চলে যাবে বা প্রশ্নবিদ্ধ হবে !!!

যেন, জাতির পিতার প্রতি ঋণ স্বীকার করলে , ইতিহাসের প্রতি সৎ থাকলে , বিশ্বাসযোগ্য , বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা করা যাবে না ! যেন, বঙ্গবন্ধু ও তার আদর্শ , সৎ ও জনমুখী সাংবাদিকতার সাথে সাংঘর্ষিক ! যেন,নাগরিকের জানার অধিকার , মত প্রকাশের স্বাধীনতা কোনোভাবে ক্ষুন্ন হয়ে যায় , জাতির জন্মের ঋণ স্বীকার করলে !

যাই হোক , পৃথিবীর সব দেশেই , সব কালেই , কিছু তথাকথিত “নিরপেক্ষ”, সব ভালো উদ্যোগেই বাধা দিতে চেয়েছে , চাইবে।

আমি বিশ্বাস করি , আমাদের মিডিয়া হাউস গুলোর কর্ণধাররা আমার এ প্রস্তাবটি বিবেচনা করবেন এবং প্রতিটি মিডিয়া হাউসই বঙ্গবন্ধুর এই জন্মশতবার্ষিকীতে নিজ নিজ অফিসে , বঙ্গবন্ধু কর্নার প্রতিষ্ঠা করবেন। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত