প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রকল্পের নামে ৩০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক চক্রের ৫ সদস্য গ্রেপ্তার

সুজন কৈরী : মেগা স্যাটেলাইট সিটি লিমিটেড প্রকল্পের নামে ১২ হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে প্রায় ৩০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পিবিআই ঢাকা মেট্রো দক্ষিণ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- ওয়াহিদুল ইসলাম রানা, রেজাউল করিম, পিংকী আক্তার, আব্দুর রহমান দাড়িয়া ও জাকির হোসেন। নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে চক্রটির নতুন অফিস পূর্বাচল গ্রিন সিটি নামের এক অফিস থেকে বৃহস্পতিবার ওই পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পিবিআই।

শুক্রবার দুপুরে বনশ্রী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে পিবিআই দক্ষিণ বিভাগের এসপি মো. মিজানুর রহমান জানান, বনানী থানায় দায়ের করা প্রতারণার একটি মামলা তদন্তের সূত্র ধরে ওই পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। চক্রটি ১৪ জনের সংঘবদ্ধ একটি প্রতারক চক্র। তারা ফ্লাট ও জমি দেয়ার কথা বলে প্রায় ১২ হাজার লোকের কাছ থেকে ৩০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। প্রথমে চক্রের সদস্যরা পূর্বাচল সেটেলাইট সিটি নামের একটি কোম্পানী করে। অনুমোদন না পাওয় ওই কোম্পানী অনেক টাকা হাতিয়েছে। এরপর তারা মেগা সেটেলাইট সিটি নামের আরেকটি কোম্পানী খুলে অনেক টাকা হাতিয়ে নেয়। এরপর কোম্পানীর নাম পরিবর্তন করে পূর্বাচল গ্রিন মডেল নামে অপর একটি কোম্পানী করে। এভাবে তারা ইতোমধ্যে চারটি কোম্পানীর নাম পরিবর্তন করেছে। একই ব্যক্তি, একই গ্রুপ বিভিন্ন জায়গায় অফিস নিয়েছে। প্রথমে বনানী নেয়, এপর আরও অনেক জায়গায় অফিস নিয়েছে।

তিনি বলেন, প্রতারণার শিকার কয়েকজনের অভিযোগ পাওয়ার পর এই চক্রের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করা হয়। অনুসন্ধানে জানা যায়, এটি ভাল প্রতারক চক্র। চক্রটি ডেসটিনি ও নিউ ওয়েসহ বিভিন্ন এমএলএম কোম্পানীর মতো প্রতারণা করছিল। গ্রেপ্তারদের মধ্যে নিউ ওয়েতে কাজ করা একজন সদস্য রয়েছেন। চক্রের মূলহোতা হাসিবুল ইসলাম জয় নামে পরিচিত। চক্রটির খোলা কোম্পানীর বুশিয়ারে সবার ছবি থাকলেও মাস্টারমাইন্ড হাসিবুলের নেই। মূলত প্রতারণার মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়া টাকাগুলো ভাগ হয়ে মূল অংশটি হাসিবুলের অ্যাকাউন্টে চলে যায়। হাসিবুলকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মিজানুর রহমান বলেন, মূলত এই চক্রের টার্গেট থাকে অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা। টার্গেট করা ব্যক্তিকে চক্রটি ১ লাখ টাকায় ৬ হাজার টাকা লাভ দেয়া ১৬ মাস পর পুরো টাকা দেয়া হবে, না পেলে জমি বা ফ্লাট দেয়ার প্রলোভন দেখায়। এভাবে তারা চারটি কোম্পানী করেছে।

এদিকে প্রতারকদের গ্রেপ্তারের খবরে একে একে কয়েকশ’ ভুক্তভোগী জড়ো হোন বনশ্রীতে পিবিআইর কার্যালয়ের সামনে। মেগা স্যাটালাইটের প্রতারণার ফাঁদে পড়া এক ভুক্তভোগী জানান, লাখে ছয় হাজার টাকার লভ্যাংশের বিনিময়ে প্রায় ৫৯ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছেন তিনি। কিন্তু ১৬ মাস পর টাকা ফেরত দেয়ার কথা থাকলেও তা দেয়া হয়নি। এক পর্যায়ে কোম্পানীর দেয়া ঠিকানায় গিয়েও অফিস পাওয়া যায়নি। পরে এ ঘটনায় বনানী থানায় মামলা করেন তিনি।

 

সর্বাধিক পঠিত