প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] নোয়াখালীতে প্রবাসীর বাড়িতে ভাংচুর ও লুটপাট

নোয়াখালী প্রতিনিধি : [২] নোয়াখালী সদর উপজেলার এওজবালিয়া ইউনিয়নে প্রবাসী ইসমাইল হোসেনের বাড়িতে নারী গ্যাংয়ের হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট এবং প্রবাসীর স্ত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে। বুধবার সকালে উপজেলার পশ্চিম এওজবালিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। হামলায় প্রবাসী ইসমাইল হোসেনের স্ত্রী জাহানারা বেগম (৩০) আহত হয়েছে।

[৩] ভুক্তভোগী জাহানারা বেগম ও স্থানীয়রা জানান, ভুক্তভোগী জাহানারার স্বামী ইসমাইল হোসেন দীর্ঘদিন বিদেশে থাকায় তার স্ত্রীকে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করে আসছে একই বাড়ির জসিম উদ্দিনের পুত্র সন্ত্রাসী নুরনবী। ইতিপূর্বে ঘটনাটি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য ও স্থানীয় সমাজপতিদের জানিয়েছেন ওই নারী। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সন্ত্রাসী নুরনবী ও তার মা রুবি আক্তার তার ঘরের সামনে গিয়ে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করে এবং নুরনবী প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষণ ও খুন করার হুমকি দেয়। ওই ঘটনায় জাহানারা নোয়াখালীর নিবার্হী ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ১০৭/১১৭ সি ধারায় মামলা করেন।

[৪] মামলার বিষয়টি জানাজানি হলে বুধবার সকালে জসিম উদ্দিনের ছেলে সন্ত্রাসী নুরনবী, জসিমের স্ত্রী রুবি আক্তার, পূর্ব এওজবালিয়া ইউনিয়নের মৃত সৈয়দ আহম্মদের পুত্র আবুল কালাম, আবুল হাসেমের পুত্র আবুল কাসেম ট্রেইলার, নুর নবীর খালা রিনা আক্তারসহ অজ্ঞাত সঙ্গবদ্ধ দল হঠাৎ করে প্রবাসীর ঘরে ঢুকে তার স্ত্রী জাহানারা বেগম ও তার শিশু-সন্তানদের ওপর হামলা চালায়। এসময় নুরনবী ও আবুল কালাম ট্রেইলার প্রবাসী জাহানারা বেগমকে ঘরের একটি কক্ষে আটকিয়ে ধর্ষণ চেষ্টা চালায় এবং মারধর করে। হামলাকারী রুবি আক্তার, রিনা আক্তার অপরাপরসহ ঘরের আসবাব পত্র ভাংচুর করে, স্বর্ণালংকার ও ঘরে থাকা নগদ ৫ লক্ষ টাকা লুট করে নিয়ে যায়। শোর চিৎকার শুনে এলাকার লোকজন এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।

[৫] খবর পেয়ে সুধারাম মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ভিকটিম মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

[৬] স্থানীয় ইউপি সদস্য রফিক উল্লাহ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, “প্রবাসীর ঘরে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।” এওজবালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুস জাহের বলেন, বিরোধে লিপ্ত উভয় পক্ষ ভাই-ভাই। তাদের মধ্যে সম্পত্তি বেচাকেনা নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। ওই বিরোধকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। ঘটনার সমাধানে আমরা পুলিশকে সহযোগিতা করছি।। ঘটনার বিষয়ে সুধারাম মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নবির হোসেন কে একাধিকবার ফোন দিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

[৭] সুধারাম মডেল থানার ওসি নবীর হোসেন জানান, প্রবাসী ইসমাইল হোসেন তার ভাই জসিম উদ্দিনের কাছে জমি বিক্রি করে দখল বুঝিয়ে না দেওয়ায় তাদের মধ্যে বিরোধ চলছে। পুলিশ ঘটনায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত