প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রতিনিয়ত আসতে থাকবে, এগুলো মোকাবেলা করেই আমাদের বাঁচতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

বাশার নূরু: [২] প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের একটা কথা মাথায় রাখতে হবে যে, দেশে ঘূর্ণিঝড় হবে, জলোচ্ছ্বাস হবে, বন্যা হবে, ভূমিকম্প হবে, অগ্নিকাণ্ড হবে, নদী ভাঙন আছে, খরা আছে, এসব প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রতিনিয়ত আসতে থাকবে। এগুলো মোকাবেলা করেই আমাদের বাঁচতে হবে। অনেক দেশের সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে! কিন্তু তুলনা করবার আগে একথাটাই সবার মনে রাখা উচিত, আমাদের সামান্য ছোট একটি ভূখণ্ড, সেটাও আবার ব-দ্বীপ।

[৩] তিনি বলেন, বাংলাদেশ একটি ব-দ্বীপ। পদ্মা-মেঘনা-যমুনা বিধৌত একটি অঞ্চল। এই ব-দ্বীপের ভূ-খণ্ডটা খুবই ছোট। আয়তন মাত্র ১ লাখ ৪৭হাজার ৫৭০ বর্গ কিলোমিটার। কিন্তু জনসংখ্যার দিক থেকে আমরা প্রায় ১৬ কোটির উপরে। স্বাধীনতার পর পর জাতির পিতা যেটা করেছিলেন- দুর্যোগের সময় মানুষকে সচেতন করা, মানুষকে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে আসা ও আশ্রয় দেওয়া। সেদিকে লক্ষ্য রেখে তিনি ব্যাপকভাবে ঘূর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাাণের কাজ শুরু করেন এবং তিনি ওই সময় বিরাট একটা পরিকল্পনা হাতে নেন।

[৪] শেখ হাসিনা বলেন, এই ব-দ্বীপের ভেতর প্রায় সাতশ নদ-নদী, খাল-বিল রয়েছে। দেশের প্লাবন ভূমি হচ্ছে ৮০ শতাংশ, পাহাড়ি এলাকা ১২ শতাংশ আর সোপান এলাকা মাত্র ৮ শতাংশ। এই জায়গায় দুর্যোগ মোকাবিলা করে মানুষকে রক্ষা করা, জানমাল বাঁচানো, তাদের নিরাপদ রাখা এবং তাদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করা- এটাই হচ্ছে সব থেকে বড় কাজ। আমি অন্তত এখন এইটুকু বলতে পারি, এ ব্যাপারে আমরা যথেষ্ট অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করেছি।

[৫] মঙ্গলবার সকালে ‘আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস-২০২০’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হয়ে দিবসটি উদ্বোধন করেন। এছাড়াও তিনি গাইবান্ধা এবং বরগুনা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে সংযুক্ত হয়ে মতবিনিময় করেন।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত