প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]ফুুলবাড়ীতে নিখোঁজের ৬ ঘণ্টা পর নদী থেকে যুবকের মরদেহ উদ্ধার

অমর গুপ্ত: [২] দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ছোট যমুনা নদীতে মাছ ধরতে গিয়ে নদীর গভীরে তলিয়ে নিখোঁজের ৬ ঘন্টা পর বিকেল সোয়া ৪ টায় নিখোঁজ সুমন হোসেনের (২৩) মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

[৩] সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টায় ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের বেলতলী মহাশ্মশান ঘাট এলাকায় মাছ ধরতে গিয়ে নদীর পানির গভীরে তলিয়ে নিখোঁজ হন ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রাঙ্গামাটি ছোয়ানী গ্রামের সামসুর মুন্সীর ছেলে ও নির্মাণ শ্রমিক সুমন হোসেন।

[৪] ফুলবাড়ী ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের সদস্যরাসহ স্থানীয়ভাবে অনেক চেষ্টা করেও খোঁজ করতে ব্যর্থ হলে রংপুর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরীদলকে খবর দেওয়া হয়। ডুবুরীদল ঘটনাস্থলে বিকেল সাড়ে তিন টা থেকে নদীর গভীরে নেমে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে নিখোঁজ হওয়ার স্থান থেকে ১০ থেকে ১৫ মিটার দূর থেকে সুমনের মরদেহ উদ্ধার করেন।

[৫] নিখোঁজ সুমন হোসেনের বড়ভাই মো. সুজন বলেন, তার ছোটভাই সুমন হোসেন পেশায় একজন নির্মাণ শ্রমিক। দুই সপ্তাহ থেকে কোন কাজকর্ম না থাকায় সোমবার সকাল সাড়ে ৯ টায় তার কয়েকজন বন্ধু নিয়ে মাছ ধরতে যান ছোট যমুনা নদীর বেলতলী মহাশ্মশান ঘাট এলাকায়। সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে সুমনের জাল নদীতে কোন কিছুর মধ্যে আটকা পড়ে। জালকে ছুটানোর জন্য সুমন নদীতে নেমে ডুব দেওয়ার পর দীর্ঘ সময়েও সে ওপরে না আসায় তার সঙ্গীরা চিৎকার শুরু করেন। আশপাশের লোকজনসহ বালুমহলের লোকজন ছুঁটে এসে নদীর পানিতে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে স্থানীয় ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেন। ফায়ার সার্ভিসের লোকজনও এসে তার কোন খোঁজ করতে না পেরে রংপুর থেকে ডুবুরী দল এসে বিকেল সোয়া ৪ টায় নদীর গভীর থেকে সুমনের মরদেহ উদ্ধার করেছেন।

[৬] রংপুর ফায়ার স্টেশনের স্টেশন কর্মকর্তা কামরুজ্জামান সুমন বলেন, তার নেতৃত্বে রংপুরা ফায়ার স্টেশনে ডুবুরী দল অন্তত ৩০ মিনিট চেষ্টা করার পর সুমন হোসেনের মরদেহ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছেন। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

সর্বাধিক পঠিত