প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কোভিড সাধারণ ফ্লুয়ের মতই বলায় ট্রাম্পের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিল ফেসবুক, টুইটার

রাশিদ রিয়াজ : [২] হাসপাতাল থেকে ফিরেই ট্রাম্প বলেন, করোনাভাইরাস অন্য সাধারণ ফ্লুয়ের মতোই। একে ভয় পাওয়ার বিশেষ দরকার নেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ভুল বার্তা দেওয়ার জন্য ট্রাম্পের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিয়েছে ফেসবুক ও টুইটার।

[৩] ট্রাম্পের পোস্ট মুছে ফেলেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তার আগেই ২৬ হাজার শেয়ার হয়ে যায়। ফেসবুক রয়টার্সকে বলেছে, কোভিডের সংক্রমণ সংক্রান্ত ভুল তথ্য দেয়ায় তা মুছে দেয়া হয়েছে । ট্রাম্পের বিরুদ্ধে এর আগেও অনেকবার পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য ফেসবুককে আবেদন করা হলেও অনেক ক্ষেত্রেই সেই আবেদন মানা হয়নি।

[৪] গত আগস্টে ট্রাম্পের পোস্ট মুছে দিয়েছিল ফেসবুক। তখন ট্রাম্প পোস্ট করে বলেছিলেন, শিশুদের কোভিড আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা একদম নেই। অথচ শিশুদের মধ্যে একটা বড় অংশই এই ভাইরাসের কবলে এসেছে। তাই ট্রাম্প ভুল তথ্য ছড়াচ্ছেন, সেই অভিযোগে সেই পোস্টও মুছে দেয় জাকারবারগের কোম্পানি।

[৫] অন্যদিকে টুইটার  ট্রাম্পের এই বিষয়ক টুইট রিটুইট করার অপশন মুছে দিয়েছে। সেইসঙ্গে ট্রাম্পকে সতর্ক করে বলা হয়েছে, কোভিড ১৯ সংক্রান্ত ভুল তথ্য দিয়ে মানুষের ক্ষতি করার চেষ্টা করেছেন ট্রাম্প যা তাদের নিয়মের বিরোধী। তাই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু ট্রাম্পের টুইট মুছে দেয়নি তারা।

[৬] ২০১৯-২০ সালে ইনফ্লুয়েঞ্জার কবলে পড়ে ২২ হাজার মানুষের মৃত্যু হয় যুক্তরাষ্ট্রে। চলতি বছর এখনও পর্যন্ত ২ লাখ ১০ হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে কোভিডে। অর্থাৎ ইনফ্লুয়েঞ্জার থেকে ১০ গুণ বেশি মানুষের মৃত্যু ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে করোনা আক্রান্ত হয়ে, যা বিশ্বে সবথেকে বেশি। তাহলে ট্রাম্প কী ভাবে কোভিড ১৯-কে ইনফ্লুয়েঞ্জার সঙ্গে তুলনা করলেন সেই প্রশ্নই তুলছেন অনেকে।

[৭] সোমবার ট্রাম্প তার দেশবাসীর উদ্দেশে বার্তা দিয়ে বলেন, কোভিড ১৯-কে ভয় না পেয়ে রাস্তায় বেরিয়ে আসুন। সেদিনই ওয়াশিংটনের বাইরে সেনা হাসপাতাল থেকে ছুটি দেওয়া হয় ট্রাম্পকে।

[৮] ট্রাম্পের প্রচার দলের বিবৃতি বলছে সংবাদমাধ্যম ও বিরোধীরা বারবার বিভিন্ন মাধ্যম ব্যবহার করে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়ানোর ও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ভাবমূর্তি খারাপ করার চেষ্টা করেছে। এমনকি প্রেসিডেন্ট যখন করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করছেন, সেই মুহূর্তেও তারা এই কাজই করে যাচ্ছে। ফেসবুক ও টুইটার কর্তৃপক্ষের এই পদক্ষেপের পরে অবশ্য ট্রাম্পের তরফে কোনও মন্তব্য করা হয়নি।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত