প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] পাটকল বন্ধে অনাহারে ৫০ হাজার শ্রমিক পরিবার, মিল চালুসহ হয়রানি বন্ধের দাবি ৫৭ বিশিষ্ট নাগরিকের

শরীফ শাওন: [৩] বিবৃতিতে তারা বলেন, মহামারি দুর্যোগ মোকাবেলায় পৃথিবীর অনেক দেশ যেখানে প্রণোদনা দিয়ে সাধারণ মানুষের কর্মসংস্থান ধরে রাখার চেষ্টা করছে, বাংলাদেশ সরকার উল্টো পাটকল বন্ধের মাধ্যমে স্থায়ী ২৫ হাজার ও অস্থায়ী ২৫ হাজার শ্রমিককে কর্মচ্যুত করেছে। অমানবিক সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে তাদের বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দিয়েছে।

[৪] তারা আরও বলেন, অব্যাহতির চার মাস পরও শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধ করা হয়নি। মজুরির দাবিতে আন্দোলনে নামলে ২৫ মার্চ রাতে দিনাজপুরে পুলিশের গুলিতে একজন শ্রমিক নিহত হন। ৪ অক্টোবর পূর্ব নির্ধারিত কফিন মিছিলের দিন সকালে তিন জন সংগঠককে পুলিশ উঠিয়ে নেয়। বিকেলে ছাত্রলীগ পুলিশ একত্রিত হয়ে মিছিল ও শ্রমিক দমন নিপীড়ন চালায়। সরকারি দলের সন্ত্রাসীরা পাঁচ জনকে বেদম মেরে পুলিশের কাছে তুলে দেয়।

[৫] দাবি জানিয়ে বলেন, অবিলম্বে এই ধরনের হামলা, গ্রেপ্তার, হয়রানি বন্ধ করা হোক। সব শ্রমিকের বকেয়া বেতন অবিলম্বে পরিশোধ করুন এবং দুর্নীতিমুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করে রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যবস্থাপনায় বন্ধ হওয়া ২৫টি মিল অতিসত্বর চালু করুন।

[৬] পাটকল শ্রমিকদের আন্দোলনে হামলা ও গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে বুধবার ৫৭ জন বিশিষ্ট নাগরিক এক যৌথ বিবৃতিতে এসব কথা বলেন।

[৭] বিবৃতিতে ই-সাক্ষর করেছেন, হামিদা হোসেইন, শিক্ষাবিদ ও মানবাধিকারকর্মী; মেঘনা গুহঠাকুরতা, গবেষক, অধিকার কর্মী; খুশি কবির, মানবাধিকার কর্মী; ড. শহিদুল আলম, আলোকচিত্রী; শাহীন আনাম, অধিকারকর্মী; সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, আইনজীবী; সারা হোসেইন, আইনজীবী; ফরিদা আখতার, নারী আন্দোলন কর্মী; মোহাম্মদ তানজিমুদ্দিন খান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; সামিনা লুৎফা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; মোশাহিদা সুলতানা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; মাহা মির্জা, লেখক, গবেষক; আজফার হুসেইন, শিক্ষক, গ্র্যান্ড ভ্যালি স্টেইট ইউনিভার্সিটি; ফাহমিদুল হক, অধ্যাপক, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; মাইদুল ইসলাম, সহকারী অধ্যাপক, সমাজতত্ত্ব বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়; আরিফুজ্জামান রাজীব, ইটিই বিভাগ, বশেমুরবিপ্রবি, গোপালগঞ্জ; রুশাদ ফরিদী, সহকারী অধ্যাপক, অর্থনীতি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; সায়েমা খাতুন, সহযোগী অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়; কাজী মারুফুল ইসলাম, অধ্যাপক, উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; আ-আল মামুন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়; গীতি আরা নাসরীন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; কামরুল হাসান, অধ্যাপক, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; বখতিয়ার আহমেদ অধ্যাপক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, রাবি; রেহনুমা আহমেদ, লেখক, নৃবিজ্ঞানী; অধ্যাপক স্বপন আদনান, ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন; ফইজুল হাকিম, চিকিৎসক, রাজনৈতিক সংগঠক; ড. লুৎফুর রহমান, অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়; মির্জা তাসলিমা সুলতানা, শিক্ষক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়; মাহমুদুল সুমন, শিক্ষক, জাহাঙ্গীরনগর বিশবিদ্যালয়; সাঈদ ফেরদৌস, শিক্ষক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়; রোবায়েত ফেরদৌস, শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; দিনা সিদ্দিকী, শিক্ষক, নিউইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়; ড. আইনুন্নাহার, শিক্ষক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়; জোবাইদা নাসরিন, শিক্ষক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়; হানা শামস আহমেদ, গবেষক, অধিকারকর্মী; পারভীন হাসান, শিক্ষক, সেন্ট্রাল উইমেন্স ইউনিভার্সিটি; নাফিসা তানজিম, শিক্ষক, লেসলি বিশ্ববিদ্যালয়; সৌভিক রেজা, শিক্ষক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়; সাদাফ নূর, শিক্ষক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়; রাইয়ান হাসান, পরিচালক, এনজিও ফোরাম অন এডিবি; অরূপ রাহী, লেখক, সঙ্গীতশিল্পী; লিসা গাজী, লেখক, সংস্কৃতি কর্মী; বিনা ডি-কস্টা, শিক্ষক, অস্ট্রেলিয়া ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়; রেজাউর রহমান লেনিন, গবেষক এবং অধিকার কর্মী; সুস্মিতা পৃথা, সাংবাদিক ও গবেষক; মুক্তাশ্রী চাকমা, অধিকার কর্মী; ঋতু সাত্তার, নাট্যকর্মী; সুব্রত চৌধুরী, আইনজীবী; ড. ফস্টিনা পেরেইরা, আইনজীবী; বীথি ঘোষ, সংস্কৃতি কর্মী; তানভীর মুরাদ তপু, আলোকচিত্রী; রুহি নাজ, অধিকার কর্মী; মিজানুর রহমান, জন-অধিকারকর্মী; মেহজাবিন রহমান, অধিকার কর্মী; আলী মো. আবু নাঈম, লেখক, সংগঠক; অনুপম সৈকত শান্ত, গবেষক ও অধিকার কর্মী এবং কল্লোল মোস্তফা, প্রকৌশলী।

সর্বাধিক পঠিত