প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কঙ্কালের রহস্য উদ্ঘাটনে ডিএনএ রিপোর্টের অপেক্ষায় পুলিশ

ইসমাঈল ইমু: [২] রাজধানীর মিরপুরের পশ্চিম শেওড়াপাড়ার ৩৮৯ নম্বর পঞ্চমতলা বাড়ির নিচতলার স্টোররুম থেকে উদ্ধারকৃত কঙ্কালের পরিচয় ও ঘটনায় জড়িতদের শনাক্তের চেষ্টা করছে পুলিশ। ইতিমধ্যে বাড়ির মালিক ভাড়াটিয়া ও এর আগের সকল ভাড়াটিয়াদের ফোন নম্বর সংগ্রহ করা হয়েছে।

[৩] ফ্ল্যাটের বর্তমান বাসিন্দা শ্যামল খান জানান, ৯ মাসের মতো আমরা এই ফ্ল্যাটে উঠেছি। কখনও বাসার ভেতর থেকে লাশ পচার কোনো গন্ধও পাওয়া যায়নি। তবে বাড়িওয়ালাকে পানির সমস্যা সমাধানের কথা বলার চার দিন পর গত ১৭ সেপ্টেম্বর মিস্ত্রি পাঠানো হয়। ওই মিস্ত্রি দেয়াল খুঁড়তে গিয়ে কঙ্কালটি দেখতে পান। পরে পুলিশ কঙ্কালটি উদ্ধার করে। ওইদিনই মামলা করে পুলিশ।

[৪] মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মিরপুর থানার এসআই শফিকুল ইসলাম জানান, কঙ্কালটি স্টোররুমের ওপর ফলস ছাদের দেয়ালের ভেতরে পাওয়া গেছে। দেয়ালের ভেতরে লাশটি ফুকিয়ে ওপরে ইট-সিমেন্টের প্রলেপ দেওয়া ছিল, যাতে গন্ধ বের না হয়। এটি নিশ্চিত করতে পলিথিনও মুড়িয়ে দেওয়া হয়। হাড়গুলো প্রায় শুকিয়ে গেছে। মাংসের কোনো অস্তিত্ব¡ নেই। ডিএনএ পরীক্ষার জন্য আলামত ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। হত্যার রহস্য উন্মোচনে সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে।

[৫] বাড়ির মালিক আবদুল হালিম সরকার জানান, ১৯৯১ সালে তিনি বাড়িটি নির্মাণ করেন। গত ২৯ বছরে তার বাড়ির এই নিচতলায় কমপক্ষে তিনটি পরিবার ভাড়াটিয়া হিসেবে ছিল। সকলের তথ্য পুলিশকে দেয়া হয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত