প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ব্যাকটেরিয়া নিজেকে ভেঙে ভেঙে সংখ্যা বৃদ্ধি করে, বোঝে সংখ্যাও!

সিরাজুল ইসলাম: [২] চমকপ্রদ এ তথ্য দিয়েছেন জার্মানির টিউবিনজেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউরোবায়োলজি ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক অ্যান্ড্রেয়াস নিডার। বিবিসি

[৩] নিবন্ধে তিনি লিখেছেন, ব্যাকটেরিয়া পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীন এককোষী প্রাণী। এমন প্রাণী আরও আছে। ব্যাকটেরিয়া বেঁচে থাকতে আশপাশের পরিবেশ থেকে পুষ্টিগুণসম্পন্ন উপাদান খায়। মাইক্রোবায়োলজিস্টরা আবিষ্কার করেছেন- ব্যাকটেরিয়ারও ‘সামাজিক জীবন’ আছে। এরা আশপাশে অন্য ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি বা অনুপস্থিতি বুঝতে পাওে; অর্থাৎ এরা সংখ্যা বুঝতে পারে।

[৪] নিবন্ধে বলা হয়, সামুদ্রিক ব্যাকটেরিয়া ভিব্রিও ফিশেরি অনেকটা জোনাকির মতো নিজেদের শরীর থেকে আলো সৃষ্টি করতে পারে। একে বলা হয়, বায়োলুমিনিসেন্স। এরা যখন পাতলা পানির দ্রবণের মধ্যে একাকী থাকে, তখন আলো ছড়ায় না। কিন্তু যখন তাদের সংখ্যা বেড়ে একটা বিশেষ অঙ্কে পৌঁছায়, তখন তারা সবাই একসঙ্গে আলো ছড়াতে থাকে। তার মানে হচ্ছে, ভিব্রিও ফিশেরি বুঝতে পারে কখন তারা একা, আর কখন তার আশপাশে অন্যরা আছে। তারা এই আলো ছড়ায় একটা রাসায়নিক ভাষা ব্যবহার করে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত