প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কর্মক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ ৫০ শতাংশ করার অঙ্গীকারে প্রধানমন্ত্রীকে প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরার অভিনন্দন

তাপসী রাকেয়া: [২] রোববার (৪ অক্টোবর) সচিবালয়ে তথ্য অধিদফতরের সম্মেলনকক্ষে বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ ২০২০ উদযাপন উপলক্ষে অনুষ্ঠানে এ অভিনন্দন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা।

[৩] প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নারীর সমতা, ক্ষমতায়ন ও অগ্রগতি নিশ্চিত করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জোর আহ্বান জানিয়েছেন। করোনা মহামারিতে বিশ্বব্যাপী নারীর চাকুরির সুরক্ষার আহবান নারীদের কর্মসংস্থান ও ক্ষমতায়নে গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। বাংলাদেশ নারীর ক্ষমতায়নে যে রোল মডেল সৃষ্টি করেছে এই ঘোষণার মাধ্যমে তা বিশ্বব্যাপী আরও ছড়িয়ে যাবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই অঙ্গীকার বিশ্বব্যাপী নারীর সমতা, ক্ষতায়ন ও অগ্রগতি অর্জনে মুক্তির সনদ হিসেবে বিবেচিত হবে বলে প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা উল্লেখ করেন।

[৪] তিনি বলেন, সরকার দেশের মোট জনসংখ্যার ৪০ শতাংশ শিশুদের উন্নয়ন, সুরক্ষা ও অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে শিশুবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টি করতে কাজ করে যাচ্ছে।

[৫] প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহের উদ্বোধন উনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুজিবর্ষে প্রকাশিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মভিত্তিক (২৫টি বই) শিশু গ্রন্থমালা, শিশুদের নির্বাচিত আঁকা ছবি নিয়ে ‘আমরা এঁকেছি ১০০ মুজিব’ ও শিশুদের নির্বাচিত লেখা নিয়ে ‘আমরা লিখেছি ১০০ মুজিব’ বইয়ের মোড়ক উম্মোচন করবেন।

[৬] প্রতিমন্ত্রী বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন বন্ধ ও প্রতিরোধের জন্য আমাদের মন্ত্রণালয় থেকে বিভিন্ন কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। আমাদের আইন রয়েছে, ওয়াস্টপ ক্রাইসিস সেল, ক্রাইসিস সেন্টার, ট্রমা সেন্টার এবং একটি হট নম্বর রয়েছে। যে কেউ সেখান থেকে সহায়তা নিতে পারে। এছাড়া দেশের কোথাও কোন নারী বা শিশু নির্যাতন হলে সাথে সাথে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে যোগাযোগ করে অপরাধীকে গ্রেফতারের ব্যবস্থা করা হয় এবং নির্যাতিতাকে চিকিৎসা সেবাসহ সব ধরনের সহায়তা করা হয়।

[৭] তিনি আরও বলেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় শুধু ঢাকা কেন্দ্রিক কার্যক্রম পরিচালনা করে না। সারা দেশব্যাপী জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। তাছাড়া মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারাও কাজ করে যাচ্ছেন। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও তৎপর রয়েছে। সম্প্রতি গত কয়েক দিনে আমরা তা দেখতে পেয়েছি। নারী ও শিশু নির্যাতনকারীদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী গ্রেপ্তার করেছে ও মামলা হয়েছে।

[৮] প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বলেন, যে কোন নির্যাতন ও সহিংসতার ঘটনা ঘটলে আমরা জেলা প্রশাসক, এসপি ও আমাদের যে জেলা -উপজেলা কর্মকর্তারা রয়েছে তাদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলছি। তারা নির্যাতিতার বাড়িতে চলে গেছে তাদের সাথে আলোচনা করছে। আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও মন্ত্রণালয়ের সাথে সমন্বয় করে কাজ করছি। নির্যাতনকারীরা যাতে রেহাই না পায় সেজন্য সবাইকে সজাগ ও সচেতন থাকার আহবান জানান মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত