প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বিশ্বের যত সমস্যা অর্ধেকের বেশি গান্ধীবাদ দিয়ে সমাধান সম্ভব: সৈয়দ আবুল মকসুদ

সমীরণ রায় : [২] বিশিষ্ট সাংবাদিক ও গবেষক আরও বলেন, রাজনীতিতে অহিংস নীতি থাকলে সমাজেও অহিসং নীতি চলে আসবে। সমাজ বা রাজনীতি, সব জায়গাতেই এটি প্রয়োগযোগ্য। বাংলাদেশে ১৯৫২ থেকে ১৯৭১, সবসময় চেয়েছি একটি অহিংস আন্দোলনের মধ্যদিয়ে যেতে। কিন্তু প্রতিপক্ষ তা মানেননি। তারা সহিংস আন্দোলেনর দিকে গিয়েছেন এবং পরাজিত হয়েছেন।

[৩] তিন বলেন, মিয়ানমার থেকে যেসব রোহিঙ্গারা সহিংসতার শিকার হয়ে বাংলাদেশে এসেছে, তাদের অহিংস ভাবে স্থান দিয়ে সমগ্র পৃথিবীতে সমাদৃত হয়েছি। বিশ্বের প্রায় সব দেশ পাশে আছে, মিয়ানামারের পাশে কেউ নেই। এছাড়া বর্ণবাদ নিয়ে বিশ্বে যে বিবাদ হচ্ছে, সেটিও অহিংস আন্দোলনেরই একটি অংশ এবং এর সুফল আসছে।

[৪] শনিবার আন্তর্জাতিক অহিংস দিবস উপলক্ষে দি হাঙ্গার প্রজেক্টের আয়োজিত এক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এসব কথা বলান।

[৫] বৈঠকে ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, একসঙ্গে ভাত খাওয়া, একসঙ্গে ছবি তোলার পরিবর্তে অহিংসতাকে জাতীয়ভাবে তুলে ধরা প্রয়োজন। সাধারণভাবে যদি মৌলিক সুরক্ষার বিষয়টি না থাকে, তবে অহিংস নীতি কষ্টকর। এই করোনায়ও সহিংসতা বেড়েছে। নারীদের প্রতি সহিংসতা বেড়ে গেছে অনেক। এটা এখন সব থেকে দ্রুত থামানো উচিত।

[৬] রাষ্ট্রদূত হূমায়ুন কবির বলেন, সমন্নিতভাবে যদি সমাজের মানুষকে একসঙ্গে আনা যায়, তবে সহিংসতার বাইরে গিয়ে কিছু করা সম্ভব। সমাজ যত পরিবর্তিত হচ্ছে, ততই সমাজে বৈচিত্রকে গ্রহণ করার ও প্রতিরোধের বিষয় উঠে আসছে। তাই সামাজিক বৈচিত্রের প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারলে শান্তিপূর্ণ সমাজ গঠন সম্ভব।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত