প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বহুল আলোচিত বাফুফের নির্বাচন শুরু

রাহুল রাজ : [২] ঠিক যতটা জমজমাট হওয়ার কথা ছিল, ততটা জমজমাট হয়ে উঠতে পারেনি এবারের বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) নির্বাচন। টানা চতুর্থবারের মত সভাপতি প্রার্থী কাজী সালাউদ্দিন। তার প্রতিদ্ব›িদ্বতায় এবার রয়েছেন একাধিক প্রার্থী, অর্থাৎ সাবেক দুই ফুটবলার- বাদল রায় এবং শফিকুল ইসলাম মানিক।

[৩] বাদল রায় এবং শফিকুল ইসলাম মানিক পরিবর্তনের প্রতিশ্রæতি দিয়েছেন। বাংলাদেশের ফুটবলে পরিবর্তন চান সবাই। পত্রিকার পাতা, সোশ্যাল মিডিয়ার ওয়াল- সর্বক্ষেত্রে একটাই আওয়াজ, পরিবর্তন প্রয়োজন। বাংলাদেশের ফুটবলের ভাগ্য বদলাতে হলে এই পরিবর্তন না হলে হবে না। কিন্তু যে পরিবর্তন সবাই চান ।

[৪] কাজী সালাউদ্দিন নিজে এক সময়ের তুখোড় এবং দেশের সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলার। তিনিও পরিবর্তনের আওয়াজ তুলে এসেছিলেন বাফুফের পরিচালনার দায়িত্বে। একটাই কৃতিত্ব তার, সারা বছর মাঠে ফুটবল রাখতে পেরেছিলেন। এছাড়া বাংলাদেশের ফুটবলের আক্ষরিক কোনো পরিবর্তন ঘটেনি।

[৫] এ কারণে বাফুফেতে তার একযুগের একনায়কতন্ত্রের পরিবর্তন চান সবাই। কিন্তু যে সমন্বয় পরিষদ সালাউদ্দিনের বিরুদ্ধে নির্বাচন করছে, সেই পরিষদের সভাপতি প্রার্থীই নেই। শেখ মোহাম্মদ আসলামের নেতৃত্বে তাদের সর্বোচ্চ প্রার্থী হচ্ছেন সিনিয়র সহ-সভাপতি। যদিও নির্বাচনের আগেরদিন রাতে, হঠাৎই বাদল রায় নিজেকে সম্মিলিত পরিষদের সভাপতি প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেছেন। কিন্তু তাতে ভোটারদের সিদ্ধান্ত নড়চড় হবে কি না জানা নেই।

[৬] তবুও বোদ্ধারা মনে করছেন, প্রার্থী যেহেতু তিনজন এবং সবাই সাবেক তারকা ফুটবলার- এ কারণে এবার ব্যালটের লড়াইটা হবে অনেক বেশি। ফুটবলের ভাগ্য নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা মাত্র ১৩৯ জনের হাতে। এরা সবাই এখন পাঁচ তারকা হোটেলে এক ছাদের নিচে। শুক্রবারই ভোটাররা উপস্থিত হয়ে গেছেন প্যানপ্যাসিফিক সোনারগাঁ হোটেলে। আজ শুরু হয়েছে ভোট। ব্যালটের মাধ্যমে আগামী চার বছর ফুটবল পরিচালনার দায়িত্ব যে কোনো একজনের কাঁধে তুলে দেবেন বাফুফের কাউন্সিলররা।

[৭] প্যানপ্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে দিনের শুরুতে সকাল ১১টা থেকে শুরু হয় বাফুফের এজিএম, বেলা ২টা থেকে শুরু হয় ভোট। চলবে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত।

[৮] বাফুফে নির্বাচনে কাজী মো. সালাউদ্দিনের নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত পরিষদ ও শেখ মোহাম্মদ আসলামের নেতৃত্বাধীন সমন্বয় পরিষদ উভয় প্যানেলই জয়ের আশা ব্যক্ত করেছে। শুধু তাই নয়, স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সভাপতি পদে শফিকুল ইসলাম মানিক ও সহসভাপতি পদে তাবিথ আউয়ালও আত্মবিশ্বাসী। সভাপতি পদে অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী বাদল রায় ভোটের মাঠে থাকবেন না ঘোষণা দিলেও শেষ মুহূর্তে লড়াইয়ে ফিরে এসে চমক লাগিয়ে দিয়েছেন।

[৯] বাফুফের নির্বাচনে ১৩৯ ভোটারের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৬৪ ভোট জেলার। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫৩ ভোট ক্লাবের। বিভাগের আছে ৮ ভোট, বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬, শিক্ষা বোর্ডের ৫ এবং একটি করে কোচেস অ্যাসোসিয়েশন, রেফারিজ অ্যাসোসিয়েশন ও মহিলা ক্রীড়া সংস্থার। এসব কাউন্সিলররাই বাফুফের ২১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যনির্বাহী পরিষদ গঠনে ভোটের মাধ্যমে রায় দেবেন।

[১০] এদিকে ভোটকেন্দ্রকে কেন্দ্র করে একটা নির্বাচনী হাওয়া বইছে। নিরাপত্তা জোরদার করে সকল প্রস্তুতি সেড়ে নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তবে ভোটকেন্দ্রে মোবাইল নেয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ভোট কেন্দ্রে নেয়া যাবে না মোবাইল ফোন। মেজবাহ বলেন, ‘আপনাদের মাধ্যমে সবাইকে জানাতে চাই। ভোটিং কংগ্রেস হলের ভেতর কর্তৃপক্ষ ছাড়া কারও কাছে কোনও মোবাইল ফোন থাকবে না।’

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত