প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ভাঙন দেখা দিয়েছে মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার পদ্মার শাখা নদীর চরে অবস্থিত পদ্মা রিসোর্টে

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: [২] বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) ভোররাতে ভাঙন শুরু হয়। এরই মধ্যে রিসোর্টের চার একর জমির মধ্যে দুই একর জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।

[৩] বেশকিছু কটেজের অংশ নদীতে বিলীন হওয়ার পর ভাঙনের আগেই ১৬টি কটেজের ১২টি ভেঙে কর্তৃপক্ষ মালামাল অন্যত্র সরিয়ে নিয়েছে। বাকিগুলো ভাঙার কাজ চলছে।

[৪] জানা গেছে, পদ্মার শাখা নদী পার হয়ে ওই রিসোর্টে যেতে হতো। নয়নাবিরাম সৌন্দর্য উপভোগ আর বর্ণিল কাঠের কটেজে অবকাশ যাপনের জন্য জেলা তথা দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসত ব্যতিক্রমী এই রিসোর্টটিতে। বহু বছর ওই চরের মধ্যেই ছিল কাঠ ও ছন দিয়ে নির্মিত রিসোর্টটি। তবে এবার পদ্মার গ্রাসে শেষ রক্ষা হলো না।

[৫] পদ্মা রিসোর্টের পরিচালক সাদেক হোসেন মান্নান বলেন, রিসোর্টের সামনের অংশের দুই একর জমি পুরোটাই ভেঙে গেছে। আমাদের প্রচুর ক্ষতি হয়েছে। বেশকিছু স্থাপনা ভেঙে যাওয়ার পর ক্ষতি কমানোর জন্য কটেজগুলো ভেঙে অন্যত্র ছড়িয়ে নেয়ার কাজ করা হচ্ছে। ১৬টির মধ্যে চারটি কটেজ আছে। সেগুলো ভেঙে ফেলা হবে।

[৬] পরবর্তীতে আবারও রিসোর্ট করার পরিকল্পনার কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বহু মানুষ রিসোর্টটি চেনে, বেড়াতেও আসে। যদি ভাঙন থেমে যায় তবে আবারও পুনরায় রিসোর্টটি স্থাপনের ইচ্ছা আছে। তবে পুরো জায়গা বিলীন হলে সেটি আর সম্ভব হবে না।

[৭] এদিকে এ বছর পদ্মার ভাঙনের কবলে এরই মধ্যে লৌহজং উপজেলার আটটি গ্রাম সম্পূর্ণ নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। এবার পদ্মা রিসোর্টের স্থানসহ উত্তর দিঘলী ও ভোজগাঁও গ্রামে ভাঙন দেখা দিয়েছে। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত