প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জাহিদ বিন আজিজ: কেনেডি পরিবারের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার সম্পর্কটা আত্মিক

জাহিদ বিন আজিজ : যুক্তরাষ্ট্র এমন একটি দেশ যেখানে কখনো রাজতন্ত্র ছিলো না। ছিলো না সরাসরি পরিবারতন্ত্রের কোনো ছোঁয়া। তবে যুক্তরাষ্ট্রে বাস করা কিছু পরিবার রয়েছে, যাদের শেকড় অনেক পুরনো। কেনেডি পরিবার ঠিক তেমনি পুরাতন ১ পরিবার, যে পরিবার আমেরিকার রাজনৈতিক ইতিহাসে নিজেদের প্রায় অমর করে রেখেছে। এই কেনেডি পরিবারের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সম্পর্কটা আত্মিক। বঙ্গবন্ধু কেনেডি পরিবারের সম্পর্কটা বেশ পুরনো। সেই সত্তর দশক থেকে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানের ঘোর সমর্থক ছিলো যুক্তরাষ্ট্র সরকার। প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন সরকারের একচোখা নীতি এক পা বাড়িয়ে বাস্তবায়ন করতেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার। কিন্তু সে সময়ে একজন মার্কিন সিনেটর প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করেছেন তার দেশের সরকারের নীতির বিরুদ্ধে। লাখো শরণার্থীর জীবন বাঁচানোর নিরবচ্ছিন্ন তাগিদ তার কণ্ঠে। তিনি সিনেটর এডওয়ার্ড মুর কেনেডি, যিনি টেড কেনেডি নামে পরিচিত।

যুক্তরাষ্ট্রের ৩৫তম রাষ্ট্রপতি জন এফ. কেনেডির সর্ব কনিষ্ঠ ভাই। মার্কিন রাজনীতিতে প্রভাবশালী কেনেডি পরিবারের তরুণ এই সদস্য তার নিরলস প্রচেষ্টায় একাত্তরে মানবতার মুখপাত্র হয়ে ওঠেন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা বিশে^। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে বাংলাদেশেও আসেন। সেই তখন থেকে দুই পরিবারের সম্পর্কটা আত্মিক হয়ে দাঁড়ায়। বঙ্গবন্ধু স্বপরিবারে নিহতের ঘটনা টেড কেনেডিকে ব্যথিত করে। সহমর্মিতায় বঙ্গবন্ধু কন্যাদের পাশে ছিলেন। ২০০৯ সালে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি ছিলেন বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। তার মৃত্যুর পর থেমে থাকেনি এই সম্পর্ক। ২০১৮ সালে টেড কেনেডির মেজ ভাই সিনেটর রবার্ট ফ্রান্সিস কেনেডির কন্যা মেরি কেরি কেনেডি বাংলাদেশে আসলেন। রোহিঙ্গা ইস্যুতে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সোচ্চার হলেন শেখ হাসিনার জন্য বাংলাদেশের বন্ধু হয়ে। ঈষৎ সংক্ষেপিত ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত