প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শরিফুল হাসান: আর কতো দুর্নীতি আর লুটপাট হলে আমাদের বোধ জাগবে?

শরিফুল হাসান: স্বাস্থ্যে কী এক আশ্চর্য প্রদীপ আছে। এখানকার কর্মচারী আবজালের হাজার কোটি টাকার সম্পদ, এখানকার গাড়ি চালকের ঢাকায় ২টি ৭তলা ভবন, নির্মাণাধীন একটি ১০তলা ভবন, ২৪ টা ফ্ল্যাট, জমি, গরুর খামার। তারপরও নাকি সব সম্পদের খোঁজ শেষ হয়নি। মাঝে মাঝে ভাবি, গাড়ি চালক বা কর্মচারীদের যদি এতো সম্পদ হয় সেখানকার বড় স্যারেরা না জানি কতো শত কোটি টাকার মালিক। এই যে দেখেন আমরা এতো পরিশ্রম করে, অনেকেই দেড়-দুই লাখ টাকা বেতন পেয়েও আমরা এই শহরে মাথা গোঁজার একটা ঠাই পাই না। ১ মাসের বেতন না পেলে পরের মাসে হয়তো বাসা ভাড়া দিতে পারবো না, আর একজন অষ্টম শ্রেণি পাস গাড়ি চালকের কোটি কোটি টাকার সম্পদ। কী আশ্চর্য প্রদীপ তাই না। আচ্ছা একজন মহাপরিচালকের কতো গুলো গাড়ি লাগে?

এই যে দেখেন একটাতে মহাপরিচালক নিজে চড়েন, আর মহাপরিচালকের জন্য বরাদ্দ হওয়া একটি পাজেরো জিপে নিজে চড়েন তার গাড়ি চালক। অধিদপ্তরের একটি পিকআপ তার খামারের দুধ বিক্রি করে এবং মেয়ে জামাইয়ের ক্যানটিনে মালামাল পরিবহণের কাজে ব্যবহার হয়। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের ব্যবহারের জন্য আছে আরেকটা একটি মাইক্রোবাস। এ তো রীতিমতো রাজার হাল। আফসোস কর্মচারীরাই যদি এতো রাজ্য আর সম্পদের মালিক হন তাদের স্যারেরা না জানি কতো শত কোটি টাকার সম্পদের মালিক। আচ্ছা এই দুর্নীতি আর লুটপাটের শেষ কোথায়। আর কতো দুর্নীতি আর লুটপাট হলে আমাদের বোধ জাগবে? রাষ্ট্রের মনে হবে, এসব এবার নির্মূল করা দরকার। আর কবে এই রাষ্ট্রের সেই বোধ জাগবে? ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত