প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]মানুষের ক্ষতি না করেই করোনার জীবাণু ধ্বংসে সক্ষম অতি বেগুনি রশ্মি, জাপানের বিজ্ঞানীদের গবেষণা

লিহান লিমা: [২] জাপানের হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা বলছেন, ২২২ ন্যানোমিটার তরঙ্গদৈর্ঘ্যের অতিবেগুনি রশ্মির সাহায্যে করোনা ভাইরাসের জীবাণু ধ্বংস করা সম্ভব। করোনা নির্মূলে সক্ষম এই মাত্রার তরঙ্গদৈর্ঘ্যের অতিবেগুনি রশ্মি মানব শরীরের জীবিত কোষের ক্ষেত্রে ক্ষতিকর নয়। মানিকন্ট্রোল

[৩]হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক হিরোকি কিতাগাওয়া জানিয়েছেন, ভিট্রো পরীক্ষায় দেখা গিয়েছে ঠিক কী ভাবে নির্দিষ্ট তরঙ্গদৈর্ঘ্যের অতিবেগুনি রশ্মির বিকিরণে সার্স-কোভিড-২ ভাইরাসকে নিষ্কিয় করা সম্ভব হয়েছে।

[৪]আমেরিকান জার্নাল অফ ইনফেকশন কন্ট্রোলো প্রকাশিত এই গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, ইউভিসি ল্যাম্পের সাহায্যে করোনা নির্মূলের পরীক্ষা করা হয়। একটি প্লেটে ভাইরাস মিশ্রিত দ্রবণের উপর অতিবেগুনি রশ্মি প্রয়োগ করেন গবেষকরা। তাতে দেখা যাচ্ছে, ২২২ ন্যানোমিটার তরঙ্গদৈর্ঘ্যের অতিবেগুনি রশ্মি ৩০ সেকেন্ড ধরে প্রয়োগ করে ৯৯.৭ শতাংশ করোনা জীবাণুকে নিষ্ক্রিয় করা গিয়েছে। এই তরঙ্গদৈর্ঘ্য চোখ কিংবা ত্বকের কোনো ক্ষতি করবে না।

[৫]তবে গবেষকরা জানিয়েছেন, এই তরঙ্গদৈর্ঘ্যের অতিবেগুনি রশ্মির কার্যকারিতা ও নিরাপত্তার বিষয়টি সম্পর্কে আরও গবেষণা প্রয়োজন। তারপরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। কারণ এখন পর্যন্ত শুধুমাত্র ভিট্রো কার্যকারীতার বিষয়টিই প্রমাণিত হয়েছে।

[৬]অন্য দেশের গবেষকদের মতে, ‘হিরোশিমা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা যে করোনাভাইরাসের নমুনা নিয়ে গবেষণা করেছেন, তা হয়তো নিস্ক্রিয় করতে সক্ষম হয়েছে অতিবেগুনি রশ্মি। কিন্তু করোনা ভাইরাস প্রতিনিয়ত রুপ বদলাচ্ছে। তাই একটা গবেষণার উপর ভিত্তি নিশ্চিত হওয়া যাবে না।’

সর্বাধিক পঠিত