প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] শেরপুরের শিল্পপতি আরিফ রেজা নির্বাচনে প্রার্থী হতে নাছোড়বান্দা!

তপু সরকার: [২] তিনি শেরপুর জেলা ট্রাক, মিনি ট্রাক, ঠ্যাংক লড়ী ও কার্ভাড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের ১১ বছরের বর্তমান সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক আধুনা শিল্পপতি আরিফ রেজা। অনেক আগে থেকেই শেরপুর পৌরসভার মেয়র পদে নির্বাচন করবেন জানিয়েছেন।

[৩] ডিসেম্বর নাগাদ নির্বাচন হবে, এমন খবরে এই শ্রমিক নেতা সারা শহরময় রঙিন পোষ্টারে ছেয়ে ফেলেছেন। শহরের সর্বত্র এই নেতার পোষ্টারে সায়লাব। দল থেকে মনোনয়ন চাইবেন না দিলেও নির্বাচন করবেন এমন ঘোষণা প্রকাশ্যেই করে যাচ্ছেন। তিনি এখন প্রার্থি হতে নাছোর বান্দা হয়ে মাঠে নেমেছেন।

[৪] জানা গেছে, আরিফ রেজা দীর্ঘদিন ধরে জেলার ২০টি শ্রমিক সংগঠন মিলিয়ে বেসিক ট্রেড ইউনিয়নের শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। নানান সামাজিক সংগঠন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের দায়িত্বেও আছেন। আরিফ রেজার বাবা মৃত সেলিম রেজাও ছিলেন, এই জেলার একজন সর্ব পরিচিত শ্রমিক নেতা। বোন ফাতেমাতোজ্জহোরা শ্যামলি গত সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ ও বর্তমানে এই জেলা বিশিষ্ঠ শিল্পপতি ও মহিলা উদ্যোক্তা। শ্যামলি শেরপুর জেলা যুব মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে আছেন।

[৫] আরিফ রেজা বলেছেন, দলের মনোনয়ন পেতে আপ্রাণ চেষ্ঠায় আছে, আর না পেলে নির্বাচন করবই। মানুষের সাথে কথা দিয়েছি, মনোনয়ন পাই না পাই প্রার্থী হবো এবং শেষ পর্যন্ত মাঠে থাকবো।গত ৫ বছর মানুষের দ্বারে দ্বারে গিয়েছি, মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। করোনা কালে পৌর এলাকার ২২ হাজার মানুষকে ত্রাণ সহয়তা দিয়েছি। দীর্ঘ কাল আমার বাবাও মানুষের সাথে ছিলেন। আমার বোন শ্যামলিও মানুষের সাথে আছেন। দল মূল্যায়ন না করলেও পৌরবাসী আমার সাথে আছে। তার দাবী দেড়শ বছরের পুরনো ১ম শ্রেণীর পৌরসভা শেরপুর। জালাবদ্ধতা, রাস্তাঘাট, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা স্বাস্থ্য ও শিক্ষাসহ এখানে নাগরিকদের কোন সমস্যার সমাধান হয়নি। সুবিধা না বাড়লেও ইচ্ছামতো কর বাড়নো হয়েছে। কয়েক বছরে ১০০ টাকার ট্রাক্স হয়েছে ২হাজার টাকা।শ্রমিক ও গরীব মানুষরা বঞ্চিত।এসব সহ্য হয় না তাই প্রার্থী হবো। সম্পাদনা: হ্যাপি

সর্বাধিক পঠিত