প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কোভিড সংক্রমণ নিয়ে কিছু গোপন করেনি চীন জানালেন শি

রাশিদুল ইসলাম : [২] গত কয়েক মাস ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদেশগুলোর অভিযোগ প্রত্যাখান করে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেন এই অতিমহামারীর মোকাবিলা করা হয়েছে প্রকাশ্যে ও স্বচ্ছতার সঙ্গে। ফলে বিশ্ব জুড়ে লাখ লাখ মানুষের প্রাণ বাঁচানো সম্ভব হয়েছে। চীনের বিরুদ্ধে ওসব দেশ অভিযোগ তোলে অনেক কিছু গোপন করেছে দেশটি। ঠিক কবে থেকে ওই রোগের সংক্রমণ শুরু হল, চীনে কতজন মারা গিয়েছেন, তা গোপন করা হয়েছে বলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বারবার দাবি করেছেন। মঙ্গলবার সেই অভিযোগ নিয়ে মুখ খুললেন প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। সিনহুয়া

[৩] কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে যারা চীনের রোল মডেল, তাদের সম্মানিত করেন শি। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ অর্থনীতিগুলির মধ্যে চীনই প্রথম অতিমহামারীর প্রভাব কাটিয়ে উঠেছে। অর্থনীতি বিকশিত হচ্ছে। তা থেকে বোঝা যায়, চীন কী পরিমাণ শক্তির অধিকারী।

[৪] কিছুদিন আগেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কোভিড প্রসঙ্গে বলেন, বেইজিং আমাদের বড় ক্ষতি করে দিল। শুধু যুক্তরাষ্ট্র নয়, গোটা বিশ্বকেই ভুগতে হচ্ছে এর জন্য। এধরনের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে প্রথম থেকেই বেইজিং বলে আসছিল অপরকে দোষারোপ না করে যুক্তরাষ্ট্রের বা নিজ নিজ দেশের কোভিড পরিস্থিতি সামাল দিতে।

[৫] কোভিড  সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যার নিরিখে বিশ্বের শীর্ষে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখের বেশি। মৃত্যু প্রায় ১ লাখ ৩০ হাজারের কাছাকাছি।

[৬] হোয়াইট হাউসে ‘স্পিরিট অফ আমেরিকা শোকেস’ নামে একটি অনুষ্ঠানেও চীনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ ঝারেন ট্রাম্প। তার অভিযোগ ছিল, চীন এমন একটা মহামারী ছড়িয়ে দিয়েছে যার বলি হতে হচ্ছে গোটা বিশ্বকেই। ট্রাম্প বলেন, ওরাই নিয়ে এসেছে এই মহামারী। যার কারণে মৃত্যু হচ্ছে লাখ লাখ মানুষের। কোভিডকে রসিকতা করে তিনি কুংফু ভাইরাসও বলেন।

[৭] ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, সংক্রমণ যখন চীনে মহামারীর পর্যায়ে যাচ্ছিল সে তথ্যও সঠিক ভাবে আন্তর্জাতিক মহলকে জানায়নি চীন। বরং মিথ্যা তথ্য দিয়ে গোটা বিষয়টাকেই লঘু করে দেখাবার চেষ্টা হয়েছিল। তিনি অভিযোগ করেন, এই মারণ ভাইরাসের চক্রান্ত চীনের  কমিউনিস্ট পার্টির। তারাই ভাইরাস ছড়িয়েছে, আর পরে সামাল দিতে পারেনি।

[৮] আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, সামনেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। তার জন্য প্রচার চালাচ্ছেন ট্রাম্প। সামাজিক বা শারীরিক দূরত্ব মানা হচ্ছে না। মাস্ক পড়ছেন না অনেকে। এছাড়া কালো মানুষদের ওপর অত্যাচারের বিরুদ্ধে দেশটির বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ লেগেই আছে। যুক্তরাষ্ট্রের কোভিড পরিস্থিতির জন্য সরকারের উদাসীনতাকেই দায়ী করেছেন অনেকে। সঠিক সময় ব্যবস্থা নিলে সংক্রমণ রোখা যেত বলেও কথা উঠেছে। নজর ঘোরাতেই বারে বারে চীনের প্রসঙ্গ তুলে দোষারোপ করেছেন ট্রাম্প। কারণ, এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে কোভিড বড় ফ্যাক্টর হয়ে দেখা দিয়েছে।

সর্বাধিক পঠিত