প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ওয়াহিদা খানম নরম খাবার খাচ্ছেন, বুধবার কেবিনে স্থানান্তর করতে চান চিকিৎসকরা : ডা. জাহেদ হোসেন

শাহীন খন্দকার : [২] দুর্বৃত্তদের হামলায় গুরুতর আহত হয়ে চিকিৎসাধীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানমের শারীরিক অবস্থা প্রায় সব সূচকেই‘যথেষ্ট উন্নতি’ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। আর সে কারণে তাকে এইচডিইউ (হাই ডিপেনডেন্সি ইউনিট) থেকে কেবিনে স্থানান্তর করতে চান চিকিৎসকরা। এ বিষয়ে বুধবার সিদ্ধান্ত নেবে মেডিকেল বোর্ড। মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস ও হাসপাতালের নিউরোট্রমা বিভাগের প্রধান ও ওয়াহিদা খানমের চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেলে বোর্ডের প্রধান অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ জাহেদ হোসেন একথা বলেন। তিনি বলেন, আমরা তাকে (ওয়াহিদা খানমকে) এখন বেডে দেয়ার কথা চিন্তাভাবনা করছি। যেহেতু এখানে কিছু নিরাপত্তার প্রশ্ন আছে, সেজন্য আমৃরা তাকে আপাতত এইচডিইউতে রেখেছি। বুধবার মেডিকেল বোর্ড বসে সিদ্ধান্ত নেবে যে, উনাকে কেবিনে দেয়া হবে কিনা।

[৩] ইউএন ওর সবশেষ শারীরিক অবস্থার কথা জানিয়ে অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ জাহেদ হোসেন বলেন, যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে তার। তিনি নিজে মুখে খাচ্ছেন। তরল খাচ্ছেন, একটু নরম খাবারও খেতে পারছেন। ওষুধপত্রও মুখে খাচ্ছেন। তার জ্ঞানের মাত্রাও সম্পূর্ণ সুস্থ মানুষের মতো আছে। অন্যান্য অবস্থাগুলো এখন মোটামুটি ভালো উন্নতি হয়েছে। শুধু (ডান) হাতটা আগের মতোই আছে। হাতের কোনো উন্নতি নাই, কিন্তু ফিজিওথেরাপি চলছে। ফিজিওথেরাপি চলার পরে কতটুকুু কী উন্নতি হয়, সেটা সময়ই বলতে পারবে।

[৪] মাঠ প্রশাসনের এ কর্মকর্তার ডান হাতের বর্তমানের অবস্থা তুলে ধরে মেডিকেল বোর্ডের প্রধান বলেন, ডান হাতের অবস্থা এখনো অবশ, বোধ থাকলেও শক্তি নেই। তাকে চিমটি কাটলে, ব্যথা দিলে তিনি সেটা বুঝতে পারেন। স্পর্শ করলে বুঝতে পারেন।

[৫] কিন্তু তার হাতে কোনো শক্তি নাই, হাত নাড়াতে পারছেন না। ওয়াহিদা খানমের ডান হাতের অবশ অবস্থা কেটে যাওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু জানতে চাইলে ডা. জাহেদ বলেন, আমাদের আশা আছে, তবে কতটুকু সেটা বলা কঠিন। আশা করি কিছু উন্নতি হবে। তবে তার জন্য সময় লাগবে। ইউএনও ওয়াহিদার বর্তমান অবস্থা কতটা শঙ্কামুক্ত জানতে চাইলে তার চিকিৎসক বলেন, কোনো মানুষকেই শঙ্কামুক্ত বলা অনেক কঠিন ব্যাপার। অনেক কারণেই অবস্থা খারাপ হতে পারে। কিন্তু যে অবস্থায় তাকে আমরা পেয়েছিলাম, সে অবস্থার উন্নতি হয়েছে। মোটামুটি সব প্যারামিটারেই উন্নতি হয়েছে। পালস, ব্লাড প্রেসার, মানসিক অবস্থা, জ্ঞানের মাত্রা, খাওয়া-দাওয়া সব কিছু চিন্তা করলে তার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে।

[৬] গুরুতর আহত ওয়াহিদাকে প্রথমে রংপুর মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলেও বৃহস্পতিবার হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় এনে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রাতে প্রায় দুই ঘণ্টায় অস্ত্রোপচার শেষে ৭২ ঘণ্টার নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয় ওয়াহিদা খানমকে। অবস্থার উন্নতি হওয়ায় সোমবার আইসিইউ থেকে এইচডিইউতে স্থানান্তর করার সিদ্ধান্ত নেয় মেডিকেল বোর্ড।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত