প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মস্কোয় চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করেছেন ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী

সালেহ্ বিপ্লব: [২] মে মাসে লাদাখ সীমান্তে প্রাণঘাতী সংঘর্ষের পর এটিই দুদেশের সর্বোচ্চ পর্যায়ের প্রথম বৈঠক। এনডিটিভি, দ্য উইক, ফিন্যান্সিয়াল এক্সপ্রেস, পিটিআই

[৩] জেনারেল উই ফেংগি ও রাজনাথ সিং, দুজনেই রাশিয়া গেছেন এক সম্মেলনে যোগ দিতে। মস্কোয় তিনদিনের ওই সভা ডেকেছে ৮ দেশের মোর্চা সাংহাই কোঅপারেশন অরগ্যানাইজেশন (এসসিও)। মূলত নিরাপত্তা ও প্রতিরক্ষা ইস্যুতে গড়ে ওঠা এই সংস্থার সদস্যদেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীরা এখন রাশিয়ার রাজধানীতে। এসসিও’র অন্য ৬ দেশ হচ্ছে রাশিয়া, কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, তাজিকিস্তান, উজবেকিস্তান ও পাকিস্তান।

[৪] চীনা প্রতিপক্ষের সঙ্গে বৈঠকে আড়াই ঘণ্টার বৈঠকে সীমান্ত উত্তেজনা নিরসনই প্রাধান্য পেয়েছে, সরকারি সূত্রের খবর। রাজনাথ সিং বলেন, এ অঞ্চলে বিশ্বাসের একটা পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। সেটার মধ্যদিয়েই শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে। আন্তর্জাতিক নিয়মকানুন মেনে আগ্রাসী মনোভাব পরিহার করারও তাগিদ দেন ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী। জোর দেন পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে কাজ করার ওপর। রাজনাথের এ বক্তব্যকে সৌহার্দ্য প্রতিষ্ঠার একটি উদ্যোগ হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

[৫] মস্কোর একটি অভিজাত হোটেলে অনুষ্ঠিত বৈঠকে ভারতের প্রতিরক্ষা সচিব অজয় কুমার ও মস্কোয় নিযুক্ত ভারতীয় রাষ্ট্রদূত ডি বি ভেংকটেশ ভার্মা ছিলেন তাদের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর সঙ্গে।

[৬] ভারতের সরকারি সূত্রের খবর, জেনারেল উই ফেংগির আগ্রহে রাজনাথ সিং-এর সঙ্গে সেখানকার সময় শুক্রবারে এ বৈঠক হলো। আর এমন এক সময়ে আয়োজনটি করা হলো, যখন পশ্চিম লাদাখে প্যাঙগন লেকের দক্ষিণ তীর দখলের পাঁয়তারা কষছে চীন। দু’পক্ষই সেনাসমাবেশ বাড়িয়েছে।

[৭] ওই এলাকায় দুদিনের পরিদর্শনে গিয়েছিলেন ভারতের চীফ অব আর্মি স্টাফ জেনারেল এম এম নারাভানে। ফিরে এসে তিনি বলেন, মূল নিয়ন্ত্রণ রেখায় (এলএসি) উত্তেজনা আছে। তবে ভারতের জনগণ তাদের সেনাবাহিনীর ওপর আস্থা রাখতে পারে।

[৮] এই পরিস্থিতিতে মস্কোয় অনুষ্ঠিত দ্বিপাক্ষিক বৈঠক এবং এসসিও’র বৈঠক থেকে কোনো সমাধান আসে কি না, এখন তা জানার অপেক্ষা।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত