প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতে টিকটক’কে ফিরিয়ে আনতে সফট ব্যাংকের দূতিয়ালী

রাশিদ রিয়াজ: চীনা প্রযুক্তি অ্যাপ টিকটকের মার্কিন সহযোগী কোম্পানি বাইটড্যান্সের অংশীদার জাপানের সফটব্যাঙ্ক। সেই সূত্রেই ব্যাংকটি রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ ও ভারতী এয়ারটেলের সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছে। তবে ভারতে চীনের টিকটক যদি চালু হয় তাহলে তা হবে ভারতীয় কোম্পানির নামে। চীনা এই অ্যাপের ভারতীয় মালিকানা কিনতে উদ্যোগী মুকেশ আম্বানির সংস্থা রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ এবং ভারতী এয়ারটেল। টাইমস অব ইন্ডিয়া

অত্যন্ত গোপনীয়তার সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে সফটব্যাংক। এ নিয়ে সফটব্যাঙ্ক, বাইটড্যান্স, রিলায়েন্স বা ভারতী এয়ারটেল মুখ খোলেনি। তবে ভারতের আরো কোম্পানি বিষয়টি নিয়ে আগ্রহী হয়ে উঠেছে এবং তারাও সফটব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করছে। পূর্ব লাদাখের গালোয়ান উপত্যকায় চীন আগ্রাসনের পরে পরেই ভারতে নিষিদ্ধ হয়ে গেছে টিকটক। আর এ ধরনের আলোচনা এমন এক সময় শুরু হলো যখন লাদাখে দু’ই পক্ষই ট্যাংক নিয়ে মুখোমুখী অবস্থান নিয়েছে।

ভারতের নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে প্রথম দফায় মোট ৫৯টি চীনা অ্যাপ ব্লক করার পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র একই পথ অনুসরণ করে। ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকে বলা হয় দেশদুটির সার্বভৌমত্ব, সংহতি, প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলার ক্ষেত্রে বিপজ্জনক বলে মনে করা হচ্ছে। বেইজিংয়ে তথ্য পাচারের অভিযোগও ওঠে। নিষেধাজ্ঞা জারির পরে টিকটকের মালিক সংস্থা বাইটড্যান্সের পক্ষে দাবি করা হয়, তারা তথ্য সংক্রান্ত গোপনীয়তা ও সুরক্ষা সংক্রান্ত ভারতীয় আইন মেনে চলে। যুক্তরাষ্ট্রেও একই যুক্তি তুলে ধরে বাইটড্যান্স বলে তারা কোনও তথ্যই চীন বা অন্য কোনও বিদেশি সরকারকে দেয় না। এ দাবিকে আমল দেয়নি নয়াদিল্লি কিংবা ওয়াশিংটন। সর্বশেষ একই অভিযোগে, পাবজি-সহ ১১৮টি চীনা অ্যাপও নিষিদ্ধ করেছে ভারত।

জুন মাসে নিষিদ্ধ হওয়ার আগে ভারতে টিকটক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল প্রায় ২০ কোটি। কোম্পানিটির কর্মী সংখ্যাও ছিল প্রায় ২ হাজার। ভারত নতুন করে বাইটড্যান্সকে ব্যবসা অব্যাহত রাখার অনুমতি দেবে না সেটা স্পষ্ট হলে ব্যবসা বিক্রির উদ্যোগ শুরু হয়। ভারতের মত যুক্তরাষ্ট্রে মাইক্রোসফটের সিইও সত্য নাদেল্লা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে জানিয়েছেন, টিকটকের মার্কিন পরিচালনার ভার নিতে চায় মাইক্রোসফট।

জাপানের সফটব্যাঙ্ক ভারতেও আগে অনেক বিনিয়োগ করেছে। স্ন্যাপডিল, ওলা ক্যাব এবং হোটেল বুকিং সংস্থা ওয়ো রুমসে বিনিয়োগ রয়েছে সফটব্যাঙ্কের। গত ডিসেম্বরেই লেন্সকার্টে ২৭৫ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করে সফটব্যাঙ্ক। সেই সুবাদে টিকটকের জন্যে ভারতীয় বিনিয়োগকারীর ব্যবস্থার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে আর্থিক এ প্রতিষ্ঠানটি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত