প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] লক্ষ্মীপুর পিডিবির লাইনম্যাদের খপ্পরে সর্বহারা গ্রাহক, সংযোগের নামে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষাধিক টাকা

জাহাঙ্গীর লিটন : [২] লক্ষ্মীপুর বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) একশ্রেণীর কর্মচারী লাইন নির্মাণ, মিটার ও অবৈধ সংযোগ দিয়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। কোনো নিয়মকানুনের তোয়াক্কা না করে গ্রাহকদের সরলতার সুযোগ নিয়ে তারা এ ধরনের অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন। তাদের খপ্পরে পড়ে গ্রাহকরা হয়রানির শিকার হচ্ছেন প্রতিনিয়ত।

[৩] জাতীয় বিদ্যুৎ শ্রমিক লীগ লক্ষ্মীপুর বিদ্যুৎ বিতরণ শাখার সাধারণ সম্পাদক ও লাইনম্যান মোঃ বাচ্চু এ চক্রের অন্যতম বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিনি লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার কাশেম নগর গ্রামের মৃত আবুল কালামের ছেলে।

[৪] এচক্রটিকে টাকা দিয়েও বিদ্যুতের সংযোগ না পেয়ে হতাশায় পড়েছেন লক্ষ্মীপুর পৌর ১৪নং ওয়ার্ড এলাকার বাসিন্দারা। অভিযোগ রয়েছে, বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার কথা বলে স্ট্যাম্পে চুক্তিপত্রের মাধ্যমে ১ লক্ষ ৫৬ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন লক্ষ্মীপুর পিডিবির লাইনম্যান মোঃ বাচ্চু। কিন্তু টাকা নেওয়ার দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও মিটার সংযোগ পায়নি ৩০-৫০ জন গ্রাহক। অথচ সম্পুর্ন বিনামূল্যে লাইন নির্মাণ বা মিটার সংযোগ দেওয়া হয় বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

[৫] ভুক্তভোগী গ্রাহক ও চুক্তিপত্র সূত্রে জানা যায়, লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার গোপীনাথপুর হইতে ইয়ারপুর গ্রামে পিডিবি বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণে ১১ পিলার ও ৪০টি মিটার সংযোগের কাজ সম্পন্ন করে দিবেন লাইনম্যান বাচ্চু। যার জন্য ১ লক্ষ ৫৬ হাজার টাকা চুক্তিভিত্তিক নিয়ে নেন বাচ্চু। কিন্তু চুক্তিপত্র অনুসারে ২০১৩ সালের মধ্যে লাইন নির্মাণের কথা থাকলেও এখনো সম্পন্ন করা হয়নি।

[৬] চুক্তিপত্রে উল্লেখ ছিল, ২০১৩ সালের মধ্যে লাইন ও মিটার সংযোগ সম্পন্ন করে দিবেন বাচ্চু। লাইন নির্মাণ সম্পন্ন হলে প্রতি মিটারে আলাদা আলাদা টাকা পরিশোধ করতে হবে। উক্ত কাজ যথাসময়ে সম্পূর্ণ করতে না পারলে চুক্তিপত্রে উল্লেখিত ১ম পক্ষ আইনগত ব্যবস্থা নিতে পারবেন।

[৭] এদিকে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, চুক্তিপত্রের ১ম পক্ষ মো. মাসুদ মারা গেলে ২য় পক্ষ অর্থাৎ পিডিবির লাইনম্যান বাচ্চু এ সুযোগে নানা টালবাহানা করে আসছেন। ফলে ওই এলাকার সহজ সরল মানুষগুলো টাকা দিয়েও পড়েছেন চরম বিপাকে।

[৮] এব্যপারে অভিযুক্ত লক্ষ্মীপুর পিডিবির লাইনম্যান মো. বাচ্চুর কাছে জানতে চাইলে তিনি অভিযোগের বিষয়ে না বলেই রাগান্বিত হয়ে বলেন, আমি রাজনীতি করি। কেউ যদি স্ট্যাম্প নিয়ে কিছু করতে চায় করুক। এসময় স্ট্যাম্প ও ভুক্তভোগীদের বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকী দেন তিনি।

[৯] লক্ষ্মীপুর বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগের (পিডিবি) নির্বাহী প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার ফাত্তজুল ইসলাম শাকের বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। পিডিবির লাইন নির্মাণ বা মিটার সংযোগ নিতে কোনো টাকা পয়সা লাগেনা। চুক্তিপত্রকালীন সময়ে মিটার জামানত ৮শ টাকা নেওয়া হতো। এছাড়া কারো কাছ থেকে চুক্তিপত্র করে টাকা আদায় করা কঠিন অপরাধ। বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এসময় গ্রাহকদের লাইন ও সংযোগ দ্রুত দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। সম্পাদনা : জেরিন আহমেদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত