প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ‘বর্ণবাদ ও করোনা ভাইরাস’ ইস্যুতে ট্রাম্পের ইমেজ পুনরুদ্ধারের চেষ্টা রিপাবলিকানদের

লিহান লিমা: [২] বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার সকাল ৭টায় শার্লট কনভেনশন হল থেকে ৩৩৬জন প্রতিনিধির সামনে নিউইয়র্কের আর্ক বিশপ কার্ডিয়ান টিমোথি দোলানের প্রার্থনা দিয়ে শুরু হয় রিপাবলিকান দলের নির্বাচনী সম্মেলনের প্রথম দিন। এপি

[৩] ট্রাম্পের দীর্ঘদিনের সমর্থক ফ্লোরিডার রিপাবলিকান ম্যাট গেটজ শুরুতেই ডেমোক্রেট প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেনের নেতৃত্ব ও নীতির সমালোচনা করেন। কৌতুক করে গেটজ বলেন, ‘আমি এমন একটি অডিটোরিয়াম থেকে কথা বলছি যেখানে জো বাইডেনের প্রাত্যহিক সূচীর চেয়ে সমাগম অনেক কম রয়েছে। গেটজ বলেন, ‘বাইডেনের নির্বাচিত হওয়া হবে হরর ছবির মতো। তারা আপনাকে অস্ত্রহীন করবে, কারাগারগুলো খালি করবে এবং আপনাকে ঘরে বন্দি করবে।’

[৪] কালো এবং শ্যামবর্ণা হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রে বেড়ে ওঠার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন জাতিসংঘে সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিক্কি হ্যালি। হ্যালি বলেন, ‘আমি এই সাদা-কালো বিশ্বে শ্যামবর্ণা মেয়ে। আমি নিজে বৈষম্য সহ্য করেছি, কিন্তু ‘যুক্তরাষ্ট্র বর্ণবাদী দেশ নয়।’ এই সময় হ্যালি ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে বলেন, ‘আমরা জানি প্রত্যেক কৃষ্ণাঙ্গের জীবনের মূল্য রয়েছে।’ এই সময় ডেমোক্রেট দলের পররাষ্ট্রনীতির নিন্দা জানিয়ে হ্যালি বলেন, ‘ সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ও ভাইস- প্রেসিডেন্ট বাইডেন উত্তর কোরিয়াকে যুক্তরাষ্ট্রকে হুমকি দিতে সাহস দিয়েছেন। অন্যদিকে ট্রাম্প দুর্বলতাকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। আমরা দেশটির ওপর সবচেয়ে বড় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছি। বাইডেন নির্বাচিত হলে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধীরা খুশি হবে।’

[৫] রিপাবলিকান দলের একমাত্র কৃষ্ণাঙ্গ সিনেটর টিম স্কট বলেন, ‘বাইডেন বলেছেন কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে তাকে ভোট না দিলে সে নাকি সত্যিকার কৃষ্ণাঙ্গ নয়। বাইডেন কৃষ্ণাঙ্গদের ব্যক্তিগত আক্রমণ করেছেন যা ট্রাম্প কখনোই করেন নি।’

[৬] রক্ষণশীল তরুণ সংগঠন টার্নিং পয়েন্ট ইউএসএ এর প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি চার্লি ক্রিক বলেন, ‘ট্রাম্প পশ্চিমা সভ্যতা ও সংস্কৃতির রক্ষক। তিনি আমাদের আমেরিকান জীবন-যাপনের সুরক্ষা করবেন।’

[৭] জর্জিয়ার স্টেট রিপ্রেজেন্টেটিভস কৃষ্ণাঙ্গ ভারনন জোনস বলেন, ‘আমি দীর্ঘদিন ডেমোক্রেট ছিলাম কিন্তু এখন ট্রাম্পকে সমর্থন করছি। কারণ আমি জানি ডেমোক্রেটরা যা বলে তা করে না।’

[৮] সম্মেলনে হোয়াইট হাউসের ইস্ট উইং থেকে মহামারীর সময় কাজ করে যাওয়া সম্মুখসারির যোদ্ধাদের সঙ্গে লাইভে আসেন ট্রাম্প। তিনি বলেন, ‘এই ডাক্তার, নার্স, অগ্নিনির্বাপক কর্মী, পরিস্কারক এবং পুলিশ ও ব্যবসায়ীরা সবার সেরা মানুষ।’ এই সময় কাউকেই মাস্ক পরতে বা সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে দেখা যায় নি। এর আগে, সম্মেলনের পূর্বে শালর্টে দলের মনোনায়ন গ্রহণের সময় ট্রাম্প বলেন, ‘ডেমোক্রেট দল কোভিডকে ব্যবহার করে নির্বাচনে জালিয়াতি করতে চাইছে। মেইল-ইন- ভোট নির্বাচনকে কলুষিত করবে।’

[৯] এনএফএর এর সাবেক কৃষ্ণাঙ্গ তারকা হার্সেল ওয়াকার বলেন, ‘ট্রাম্পের সঙ্গে আমার ৩৭ বছরের বন্ধুত্ব। আমার জীবনে শোনা সবচেয়ে জঘন্য কথাটি হলো সে বর্ণবাদী। তারা জানেই না বর্ণবাদ কাকে বলে। আমি ডিপ সাউথে বড় হয়েছি। আমি জানি বর্ণবাদ কি। যা কখনোই ডোনাল্ড নয়।’

[১০] মেরিল্যান্ডের কিম ক্লাচিক বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে ডেমোক্রেট দল ম্যারিল্যান্ডের কৃষ্ণাঙ্গ বাল্টিমোর ভোটারদের অবহেলা করে আসছে। আমরা আর এটি নিতে পারছি না। অন্ধভাবে ডেমোক্রেটদের সমর্থন করার দিন শেষ হয়ে আসছে। তিনি বাইডেনের নিন্দা জানিয়ে বলেন, ‘তিনি বিশ্বাস করেন কারো গায়ের বর্ণ তার রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গী নির্ধারণ করে দেবে। আমরা এই মিথ্যে আর গ্রহণ করবো না।’

[১১] ট্রাম্প ক্যাম্পেইনের পরামর্শক কিম্বারলি গেফোলি বলেন, জো ও কামালা দেশের মূল ভিত্তিকে ধ্বংস করে দেবেন। বাইডেন ও তার সমাজতান্ত্রিক কমরেডরা যুক্তরাষ্ট্রকে শেষ করে দেবেন।

[১২]ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার বিক্ষোভকারীদের ওপর বন্দুক তাক করা সেন্ট লুইসের দম্পতি মার্ক ও প্যাট্রিকা ম্যাকক্লোসি বলেন, ‘ডেমোক্রেটরা অপরাধীদের সুরক্ষা করছে ও শহরগুলোকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। ডেমোক্রেট শাসিত চরমপন্থী আমেরিকায় আাপনার পরিবার নিরাপদ না।’

[১৩]বাবাকে সমর্থন জানিয়ে ট্রাম্পের পুত্র ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র বলেন, ‘ওবামা ও বাইডেন প্রশাসন আমাদের অর্থনীতির জন্য কিছুই করেন নি। বাইডেন চীনের প্রতি দুর্বল। ট্রাম্প আমেরিকার অর্থনীতিকে দাঁড় করিয়েছেন। তার শাসনামলে যুক্তরাষ্ট্রে বেকারত্ব হ্রাস পেয়েছে।’

[১৪]মার্কিন সংবাদমাধ্যম এএফপি বলছে, সম্মেলনে রিপাবলিকান দল প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প পুনঃনির্বাচিত না হলে কি ভয়ানক পরিস্থিতির তৈরি হবে তা বোঝানোর চেষ্টা করেছে। সিএনএন বলছে, পুরো সম্মেলনেই রিপাবলিকান নেতারা ট্রাম্পের ইমেজ পুনরুদ্ধারের চেষ্টা করছিলেন। কৃষ্ণাঙ্গদের ভোট আনতে চেষ্টা করছিলো তারা। দ্য গার্ডিয়ান জানায়, করোনা ভাইরাস মহামারীকে ট্রাম্প কতটা গুরুত্ব দিয়েছেন তা বোঝাতে ব্যতিব্যস্ত ছিলো রিপাবলিকান দল।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত