প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] করোনাকালেও পাগলা মসজিদের দানবাক্সে পৌনে ২ কোটি টাকা

সাজিয়া আক্তার : [২] কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের দানবাক্স থেকে এবারও রেকর্ড পরিমাণ অর্থাৎ ১ কোটি ৭৪ লাখ ৮৩ হাজার ৭১ টাকা টাকা পাওয়া গেছে।

[৩] শনিবার (২২ আগস্ট) বিকেলে গণনা শেষে এ টাকার হিসাব পাওয়া যায়। টাকা ছাড়াও দান হিসেবে অনেক স্বর্ণালঙ্কার পাওয়া গেছে দানবাক্সে। এবার ছয় মাস সাতদিন পর মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হলো। ফলে দানবাক্সে পাওয়া গেল ১২ বস্তা টাকা।

[৪] এর আগে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি দানবাক্সগুলো খোলা হয়েছিল। তখন এক কোটি ৫০ লাখ ১৮ হাজার ৪৯৮ টাকা ও স্বর্ণালঙ্কার-বৈদেশিক মুদ্রা পাওয়া যায়। সাধারণত তিন মাস পরপর দানবাক্স খোলা হয়। তবে এবার করোনা মহামারির কারণে দেরিতে এগুলো খোলা হয়।

[৫] শনিবার সকাল ১০টার দিকে কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর নেতৃত্বে জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদের আটটি দানবাক্স খোলা হয়। পরে দানবাক্সের টাকা বস্তায় ভরা হয়। ছোটবড় ১২টি টাকাভর্তি বস্তা নেয়া হয় মসজিদের দোতলায়।

[৬] এরপর মসজিদের মেঝেতে রেখে শুরু হয় গণনার কাজ। স্থানীয় একটি ব্যাংকের সব কর্মকর্তা ও মসজিদ-মাদরাসার শতাধিক শিক্ষার্থী গণনা কাজে সহযোগিতা করেন। বিকেল ৫টায় গণনা শেষে এক কোটি ৭৪ লাখ ৮৩ হাজার ৭১ টাকা পাওয়া যায়। টাকার পাশাপাশি দানবাক্সে পাওয়া গেছে স্বর্ণালঙ্কার এবং বৈদেশিক মুদ্রা।

[৭] মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ বলেন, পাগলা মসজিদের দানবাক্স থেকে আজ এক কোটি ৭৪ লাখ ৮৩ হাজার ৭১ টাকা পাওয়া গেছে। সেই সঙ্গে পাওয়া গেছে স্বর্ণালঙ্কার এবং বৈদেশিক মুদ্রা। টাকাগুলো রূপালী ব্যাংকের কিশোরগঞ্জ শাখায় জমা রাখা হয়েছে।

[৮] টাকা গণনার কাজ তদারকি করেন কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আব্দুল্লাহ আল মাসউদ, পাগলা মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মাহমুদ পারভেজ, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফজলে রাব্বি, মাহমুদুল হাসান, উবাইদুর রহমান সাহেল, পাগলা মসজিদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. শওকত উদ্দীন ভূঞা ও রূপালী ব্যাংকের কিশোরগঞ্জ শাখার কর্মকর্তারা।

[৯] দানবাক্স ছাড়াও প্রতিদিন নানা শ্রেণি-পেশা ও ধর্মের মানুষ মানত আদায় করতে ছুটে আসেন পাগলা মসজিদে। নগদ টাকা ছাড়াও তারা নিয়ে আসেন চাল-ডাল-গবাদি পশুসহ বিভিন্ন সামগ্রী। দিন শেষে এসব পণ্য নিলামে বিক্রি করে ব্যাংকে টাকা জমা রাখা হয়।

[১০] দানকৃত টাকায় পাগলা মসজিদ ও ইসলামী কমপ্লেক্সের খরচ চালিয়ে অবশিষ্ট টাকা জমা রাখা হয় ব্যাংকে। দানের টাকা থেকে জেলার বিভিন্ন মসজিদ, মাদরাসা ও এতিমখানায় অনুদান দেয়া হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত