প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শুধু ঋণ দেওয়া নয়, সফল উদ্যোগপতি তৈরিতেও টেকনিক্যাল সহায়তা করবে বন্ধন

ডেস্ক রিপোর্ট : আগামী ২৩ অগস্ট সাফল্যের সঙ্গে পাঁচ বছর পূর্ণ করবে বন্ধন ব্যাংক। ২০১৫ সালের জুন মাসে বন্ধন গ্রুপকে সর্বজনীন ব্যাংক গড়ে তোলার জন্য চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছিল ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাংক। তার আগে দেশের গ্রাম ও আধা শহর এলাকায় পিরামিডের নিচের অংশের মানুষের আর্থিক চাহিদা মেটানোর লক্ষ্যে নিরলস কাজ করছিল বন্ধন। প্রায় দু’দশক ধরে দেশের অর্থনৈতিক ভাবে দুর্বল শ্রেণিকে সহজে ও সময়ে ক্ষুদ্র ঋণের পরিষেবা দিয়ে তাদের ক্ষমতায়ণে সাহায্য করেছে এই প্রতিষ্ঠান। মহাজনদের শোষণ ও শৃঙ্খল থেকে তাদের মুক্ত করেছে।

 

সমাবেশি ব্যাংকিং পরিষেবা বন্ধনের আত্মায় রয়েছে। সার্বজনীন ব্যাংকিং লাইসেন্স পাওয়ার ফলে এই প্রতিষ্ঠান একটি মজবুত রিটেল ব্যাংকিং পরিকাঠামো গড়ে তোলার সুযোগ পেয়েছে এবং বিপুল পরিমাণ আমানত সংগ্রহ করতে পেরেছে। এর ফলে ব্যাংকের গ্রাহকদের মধ্যে যেমন একটা সঞ্চয় প্রবণতা গড়ে উঠেছে, তেমনই ব্যাংকও ঋণগ্রহীতাদের কম সুদে টাকা দিতে পেরেছে।

সর্বজনীন ব্যাংক হিসাবে অনুমোদন পাওয়ার পর গোটা দেশে বন্ধন তার ব্যাংকিং পরিষেবাকে ছড়িয়ে দিয়েছে। গোটা দেশের মোট ৩৪টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ৪৫৫৯টি ব্যাংকিং আউটলেট এবং ৪৮৫টি এটিএম গড়ে তোলা হয়েছে। ক্ষুদ্র ঋণ বন্ধনের সমগ্র পোর্টফোলিওর ৬৪ শতাংশ জুড়ে রয়েছে। তবে ক্ষুদ্র ঋণ ছাড়াও নতুন প্রোডাক্টও শুরু করেছে বন্ধন—যেমন ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি উদ্যোগের (এমএসএমই) জন্য ঋণ, গোল্ড লোন এবং মধ্যবিত্তদের জন্য গৃহঋণ। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের অক্টোবর মাসে গ্রুহ ফিনান্স বন্ধনের সঙ্গে সংযুক্ত হয়েছে।

এই পাঁচ বছরে বন্ধন কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রেও বিপুল সুযোগ তৈরি করেছে। এই মেয়াদে বন্ধনের কর্মী সংখ্যা ১৩ হাজার থেকে বেড়ে হয়েছে ৪২ হাজার। ব্যাংকে প্রত্যক্ষভাবে কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরির পাশাপাশি পরোক্ষেও কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করেছে বন্ধন। বন্ধনের ১.১২ কোটি ক্ষুদ্র ঋণ গ্রাহক অন্তত একজন করে কর্মী নিয়োগ করেছে ধরে নিলে, এ কথা নিঃসন্দেহে বলা যায় যে ক্ষুদ্র ঋণ গ্রহীতারা শুধু নিজেদের জীবিকা সুনিশ্চিত করেননি আরও ১.১২ কোটি মানুষের জীবিকা নির্বাহের সুযোগ করে দিয়েছেন।

 

বন্ধন ব্যাংকের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর চন্দ্রশেখর ঘোষ বলেন, ‘গত পাঁচ বছরে বন্ধন ব্যাংক লক্ষ লক্ষ মানুষ ও ক্ষুদ্র উদ্যোগকে ব্যাংকিং ব্যবস্থার মূলস্রোতে আনতে সফল হয়েছে। এই বিপুল অংশের মানুষ আগে ব্যাংকিং পরিষেবা থেকে বঞ্চিত ছিলেন বা তাঁদের সামনে সেই সুযোগ অপ্রতুল ছিল। এর ফলে তাঁদের অর্থনৈতিক স্বাধীনতা এসেছে এবং তাঁরা আগের থেকে অনেক বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়েছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘বন্ধনের সমস্ত গ্রাহককে তাই আমি অন্তর থেকে কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। তাঁরা শুধু ঋণ নেওয়ার জন্য আমাদের উপর আস্থা রেখেছেন তা নয়, জীবনের সঞ্চয় বিশ্বাস ও ভরসার সঙ্গে আমাদের কাছে রেখেছেন।’

আগামী দিনেও দেশের ক্ষুদ্র, ছোট ও মাঝারি উদ্যোগকে একইভাবে সাহায্য করা হবে বলে জানিয়েছে বন্ধন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। কারণ, এই উদ্যোগগুলিই দেশের অর্থনৈতিক সম্পদ তৈরি করবে, কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেবে। এই প্রতিষ্ঠানগুলি মজবুতভাবে নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে পারলেই আত্মনির্ভর এবং শক্তিশালী ভারতবর্ষ তৈরি হবে। শুধু তা নয়, ক্ষুদ্র ঋণগ্রহীতাদের ছোট উদ্যোগপতিতে রূপান্তরিত করার জন্য উৎসাহ দেবে বন্ধন। ঋণগ্রহীতারা যাতে ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে, GST এবং আয়করের নিয়ম মেনে ব্যবসা করতে পারেন সেই বিষয়েও প্রয়োজনীয় সমস্ত সহায়তা করবে এই ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানটি।এই সময়

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত