প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

করোনার ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা বলে চাচা-ভাতিজিকে অপহরণ

ডেস্ক রিপোর্ট : স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মী পরিচয়ে করোনার ভ্যাকসিন দেওয়ার কথা বলে পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রীকে বাড়ি থেকে জোরপূর্বক উঠিয়ে নিচ্ছিল চার অজ্ঞাত পরিচয়ের ব্যক্তি। তখন ওই কিশোরীর চাচা ভাতিজিকে রক্ষা করতে গেলে তাঁকেও অস্ত্রের মুখে অ্যাম্বুল্যান্সে তুলে অজানা গন্তব্যে নিয়ে যাওয়া হয়। আশপাশের লোকজন ও এলাকাবাসী কিছু বুঝে ওঠার আগেই চাচা-ভাতিজিকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া হয়। বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার পৌর এলাকার আড়াইবাড়িয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।কালেরকন্ঠ

খবর পেয়ে হোসেনপুর থানা পুলিশসহ জেলা পুলিশ ওই অপহরণকারী চক্রের অ্যাম্বুল্যান্সটি আটক করতে মাঠে নামে। কিন্তু অ্যাম্বুলেন্সটি আটক করে অপহৃতদের উদ্ধার এবং অপহরণকারী চক্রের লোকজনকে আটক করতে ব্যর্থ হয় তারা। তবে ওই ছাত্রীর চাচার সঙ্গে থাকা মোবাইলের সূত্র ধরে তথ্য প্রযুক্তির আশ্রয় নিয়ে রাত ১০টার দিকে ভৈরবে টাওয়ার লোকেশন পায়। আর এ সূত্র ধরে পুলিশি অনুসন্ধান অব্যাহত থাকা অবস্থায় আজ শুক্রবার বিকাল ৪টার দিকে ওই অপহৃত শিক্ষার্থী ও তার চাচা মুক্তি পেয়ে বাড়িতে ফিরে এসে কান্নায় ভেঙে পড়ে।

এসময় তারা জানায়, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কোনো এক নির্জন ঘরের ভেতর আঁটকে রেখে মুক্তিপণের জন্য তাদের নির্যাতন করা হয়। পরে মুক্তিপণ পাওয়া যাবে না ভেবে তাদের আজ শুক্রবার দুপুরে মুক্তি দেয় অপহরণকারী দল। মুক্তি পেয়ে পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে তারা বিকেল ৪টার দিকে বাড়ি ফেরে।

অপহৃতরা হলো- আড়াইবাড়িয়া গ্রামের রিকশা শ্রমিক ইসলামের পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া মেয়ে রিয়াকে (১২) এবং তার চাচা মফিজ উদ্দিন (৪৫)।

অপহৃত কিশোরীর দাদা এবং মফিজের বাবা জানান, এঘটনার পর তারা পুলিশকে জানিয়ে নিজেরাও বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করছিলেন।

বাদল মিয়া নামে গ্রামের এক প্রতিবেশী জানান, তার ধারনা ধনী পরিবারের কাউকে অপহরণ করতে এসে হয়তো অপহরণকারী ভুলক্রমে ওই দরিদ্র পরিবারের কিশোরী কন্যা ও তার চাচাকে অপহরণ করে ফেলে। শেষ পর্যন্ত ভুল বুঝতে পেরেই হয়তো তাদের মুক্তি দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে কথা হলে হোসেনপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. সোনাহর আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, মুক্তি পাওয়া অপহৃতদের থানা হেফাজতে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে অপহরণের রহস্য উদঘাটন এবং ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত