প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ইরাক থেকে সেনা প্রত্যাহারের প্রতিশ্রুতি দিলেন ট্রাম্প

রাশিদুল ইসলাম : [২] ইরাক থেকে সেনা প্রত্যাহারের ব্যাপারে আবারো প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে ওয়াশিংটনে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মুস্তাফা আল-কাজেমির সঙ্গে বৈঠকে এ প্রতিশ্রুতি দিলেও নির্দিষ্ট কোনো সময় উল্লেখ করেননি। ট্রাম্প বলেন, যখন সমস্ত মার্কিন সেনা ইরাক ছেড়ে দেশে ফিরবেন তিনি সেই দিনের অপেক্ষায় আছেন। ইরাকে মার্কিন ব্যবসায়ীরা তেলের বড় বড় চুক্তি করেছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন। প্রেসটিভি

[৩] পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ট্রাম্প বলেন, আমরা খুব শিগগিরই ইরাক থেকে ফিরে আসবো। সেখানে আমাদের খুব কম সংখ্যক সেনা আছে যারা ইরাককে সাহায্য করছে এবং বিষয়টি ইরাকের প্রধানমন্ত্রী জানেন। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, ইরাক থেকে সেনা ফিরিয়ে আনার জন্য বাগদাদের সঙ্গে কাজ করছে ওয়াশিংটন। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আমাদের সেনারা ফিরে আসবে, সেনা সংখ্যা একেবারে সর্বনিম্ন পর্যায়ে নামিয়ে আনা হবে।

[৪] এই মুহূর্তে ইরাকে প্রায় পাঁচ হাজার মার্কিন সেনা রয়েছে এবং মার্কিন মিত্রদেশগুলোর সেনা রয়েছে আড়াই হাজার। সেনা প্রত্যাহার না করলে মার্কিন স্বার্থে আঘাতের হুমকি দিয়েছে ইরাকি প্রতিরোধ আন্দোলন। লেবাননের আল মায়াদিন টেলিভিশন চ্যানেলের খবরে বলা হয়েছে ইরাকে প্রতিরোধকারী সংগঠনগুলো বলেছে, যদি ইরাকের ভূমি থেকে মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহারের ব্যাপারে ওয়াশিংটন চুক্তিতে পৌঁছাতে ব্যর্থ হয় তাহলে আমরা ইরাকের ভেতরে মার্কিন স্বার্থে আঘাত হানার অধিকার রাখি। আমরা আশা করি, প্রধানমন্ত্রী কাজেমি ইরাকের ভেতর মার্কিন ষড়যন্ত্র বাস্তবায়নের নতুন কোন পরিকল্পনা নিয়ে দেশে ফিরবেন না।

[৫] পপুলার মোবিলাইজেশন ইউনিট ইরাক থেকে মার্কিন সেনা বহিষ্কারের বিষয়টিকে সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়ে থাকে এবং তারা মনে করে এ বিষয়টি সরকারের কাছেও সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাওয়া উচিত। গত জানুয়ারি মাসে ইরাকের জাতীয় সংসদ দেশ থেকে মার্কিন সেনা ফেরত পাঠানোর ব্যাপারে সর্বসম্মতভাবে একটি প্রস্তাব পাস করেছে। ইরানের আইআরজিসি’র কুদস ফোর্সের কমান্ডার জেনারেল কাসেম সোলাইমানি ও ইরাকের পপুলার মোবিলাইজেশন ইউনিটের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড আবু মাহদি আল-মুহান্দিস মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হবার পর মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের দাবি আরো কঠোর হয়ে উঠছে।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত