প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] গণবিক্ষোভের মুখে পুন:নির্বাচন দিতে রাজি হয়েছেন বেলারুশের একনায়ক লুকাশেঙ্কো

লিহান লিমা: [২] টানা নবম দিনের সরকারবিরোধী বিক্ষোভের মুখে ১৯৯৪ সাল থেকে বেলারুশের শাসন ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্ট আলেক্সান্ডার বলেছেন, ‘সংবিধান সংশোধন করে গণভোটের ব্যবস্থা করা হবে।’ এ সময় তিনি আরো জানান, ‘বিক্ষোভ বা চাপের মুখে নয়, সংবিধান সংশোধনের পর তিনি ক্ষমতা হস্তান্তর করবেন।’ ডয়েচে ভেলে

[৩] যদিও আগে লুকাশেঙ্কো বলেছিলেন, দ্বিতীয়বার নির্বাচন করার পূর্বে তাকে হত্যা করতে হবে। বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, লুকাশেঙ্কো চাপের মুখে মত বদল করেছেন নাকি বিক্ষোভ থামানোর জন্য এই চাল গ্রহণ করেছেন তা অস্পষ্ট।

[৪] লুকাশেঙ্কোর এই ঘোষণার পর লিথুয়ানিয়ায় রাজনৈতিক আশ্রয় নেয়া দেশটির বিরোধী দলীয় নেত্রী শ্বেতলানা তিখানোভস্কায়া অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নিরাপত্তাবাহিনীকে সহায়তা করার আহ্বান জানান।

[৫] গত ২৬ বছর ধরেই বিরোধী দল, সাংবাদিক এবং গণমাধ্যমকে কঠোর হস্তে দমন করে আসছেন লুকাশেঙ্কো। ৯ আগস্টের নির্বাচনে লুকাশেঙ্কোর পুনরায় ক্ষমতায় আসার খবর শুনে ভোট জালিয়াতির অভিযোগ এনে বিক্ষোভে যোগ দেন কারখানার কর্মী, শিক্ষার্থী, তরুণ ও রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত গণমাধ্যমের কর্মীরা। সাংবাদিকরা বলেন, ‘যদি গণমাধ্যমের ওপর থেকে সেন্সরশীপ তুলে না নেয়া হয়, আমরা যদি সত্যিকারের সাংবাদিকতা করতে না পারি তবে আমরা কাজ করবো না।’ রাজধানী মিনস্কে ‘মার্চ ফর ফ্রিডম’ র‌্যালিতে যোগ দেয় প্রায় ১ লাখ বিক্ষোভকারী। ইয়ন

[৬]বিক্ষোভের মুখে বেলারুশের ইন্টারনেট ব্যবস্থা দুর্বল করে দেয়া হয়। বন্ধ করা হয় সার্চ ইঞ্জিন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং গণমাধ্যম। প্রায় ৭ হাজারের বেশি মানুষকে আটক করা হয়।

[৭]বেলারুশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারির বিষয়ে আলোচনা করতে বুধবার জরুরি বৈঠক ডেকেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন। প্রতিবেশী দেশ ইউক্রেন বেলারুশ থেকে তাদের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে পাঠিয়েছে। লিথুয়ানিয়া বেলারুশের অধিবাসীদের মানবিক আশ্রয় দেয়ার ঘোষণা করেছে।

সর্বাধিক পঠিত