প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ঝুঁকিপূর্ণ প্রতিরক্ষা বাঁধে কমলগঞ্জে বাঁধার মুখে পানি উন্নয়ন বোর্ডের মেরামত কাজ বন্ধ

সোহেল রানা, মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: [২] এলজিইডির দাবি সমিতির মাধ্যমে এ স্থানে বাঁধ মেরামত করেছে এলজিইডি।

[৩] পানি উন্নয়ন বোর্ড ও এলজিইডির বিরোধে কারনে বন্ধ থাকা কাজের স্থান আজ(বুধবার) কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরিদর্শন করবেন।জানা যায়,গত ৫ / ৬ মাস ধরে মাধবপুর ইউনিয়নের শিমুলতলা গ্রাম এলাকায় ধলাই নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় বাঁধ মেরামত কাজ করছিল পানি উন্নয়ন বোর্ড।

[৪] এসময় স্থানীয় গ্রামবাসী, জনপ্রতিনিধিরা দাবি করেছিলেন একই ইউনিয়নের ধলাই প্রতিরক্ষা বাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে বাঁধ মেরামত করতে। এ দাবির প্রেক্ষিতে ২ মাস পূর্বে পানি উন্নয়ন বোর্ড ১৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ঠিকাদার নিয়োগ করে ধলাইর পার গ্রাম এলাকার প্রতিরক্ষা বাঁধ মেরামতের কাজ শুরু করে। গত(১০ আগষ্ট) সোমবার পর্যন্ত ৬০ ভাগ কাজও সম্পন্ন হয়েছে। এরই মধ্যে স্থানীয় লঙ্গুছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমিতি ধলাইর পার এলাকার প্রতিরক্ষা বাঁধের কাজে আপত্তি জানালে কাজ বন্ধ রাখা হয়। মাধবপুর ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য মোতাহের আলী বলেন, গ্রামবাসীসহ তাদের অনুরোধে মাস খানেক পূর্বে পানি উন্নয়ন বোর্ড ধলাইর পার এলাকায় প্রতিরক্ষা বাঁধের মোমত কাজ শুরু করেছিল।

[৫] সোমবার লঙ্গুছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমিতি এ কাজে আপত্তি জানিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে। তিনি আরও বলেন নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে পানি উন্নয়ন বোর্ড ভালো কাজ করবে। এখানে এলজিইডির কাজের প্রয়োজন নেই।

[৬] পানি উন্নয়ন বোর্ড মৌলভীবাজারের নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, ১৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ধলাইর পার গ্রাম এলাকায় ধলাই প্রতিরক্ষা বাঁধে কাজ শুরু করা হয়েছিল। প্রাায় ৬০ শতাংশ কাজও শেষ। এখন হঠাৎ করে লঙ্গুছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমিতি আপত্তি জানিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। তাদের দাবি এ স্থানটি এলজিইডির নিয়ন্ত্রণে। তারা স্থানীয় একটি লঙ্গুছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমিতির মাধ্যমে এখানে কাজ করেছিলেন।

[৭] তিনি আরও বলেন, কাজ শুরুর সময় আপত্তি জানালে কাজটি বন্ধ করা যেত। এখন কাজ বন্ধ রাখার কোন সুযোগ নেই। তাছাড়া এলজিইডি এসে সীমানা নির্ধারণ করে যাক কতটুকু স্থান তাদের। তা হলে এ স্থানের বাহিরে পানি উন্নয়ন বোর্ড কাজ করবে। কমলগঞ্জ উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী জাহিদুল ইসলাম বলে ধলাইরপার গ্রামে লঙ্গুছড়া পানি ব্যবস্থাপনা সমিতির মাধ্যমে ধলাই প্রতিরক্ষা বাঁধে কাজ করা হয়েছে। তাদের কাজের ওপর পানি উন্নয়ন বোর্ড কাজ করছে। এ স্থানে এলজিইডি কাজ করবে। তাই তারা আপত্তি জানিয়েছেন। তিনি মনে করেন পানি উন্নয়ন বোর্ড এলজিইডির সাথে সমন্বয় করে ধলাই প্রতিরক্ষা বাঁধে কাজ করুক।

[৮] কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসলে নদ-নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে পানি উন্নয়ন বোর্ড কাজ করার কথা। এখানে সম্বয়ের কিছু অভাব রয়েছে বলে মনে হচ্ছে। তিনি (আজ)বুধবার ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করে উভয় পক্ষের সাথে আলোচনা করে এ সমস্যার সমাধান করে দিবেন। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত